নাচতে নেমেছি, তাই ঘোমটা দিয়ে লাভ নেই: শিপ্রা দাস

শেয়ার

নারীরাও যে পারে তার অনন্য উদাহরণ শিপ্রা দাস। তার বয়স ৩৫। বিভিন্ন প্রতিকূলতার পেরিয়ে দীর্ঘ ৮ বছর ধরে করছেন মুচির কাজ।

বোয়ালখালী উপজেলার গোমদন্ডী রেল ষ্টেশন সংলগ্ন রোহাই পাড়া এলাকায় দেড় বছর ধরে এক ভাড়া বাসায় তার মতো এক বান্ধবীর সাথে থাকেন। সাথে থাকে সদ্য তৃতীয় শ্রেণির বার্ষিক পরীক্ষা দেওয়া এক ভাতিজা। তার বান্ধবীরও এক মেয়ে রয়েছে।

২০০৭ সালে বিয়ের ফুল ফুটলেও ফুলটি বেশিদিন তাজা থাকেনি। চলে আসেন বাপের বাড়ি। তার কোনো সন্তান নেই ।

দীর্ঘ ১২ বছর করেছিলেন গার্মেন্টসের চাকরি, ছিলেন সুপারভাইজার। ভাগ্যের পরিহাস এক সড়ক দুর্ঘটনায় মেরুদণ্ডে গুরুতর আঘাত পান। আহত হয়ে ঘরে বসে ছিলেন দেড় বছর। শেষ পর্যন্ত লেগে পড়লেন মুচির কাজে।

কোনো কাজই ছোট না, তাই বাবার থেকে দেখতে দেখতে শেখা কাজ নিয়ে ঝাঁপিয়ে পড়েন জীবনযুদ্ধে।

তিনি জানান, আমার পৈত্রিক বাড়ি ব্রাহ্মণবাড়িয়া। কাজের তাগিদে পরিবারের বোয়ালখালীতে আসা। পৌরসভাস্থ ফুলতল এলাকায় আমরা থাকতাম। ছোটবেলা থেকে মায়ের সাথে এদিক ওদিক ঘুরে বেড়াতাম। তাই লেখাপড়ার সুযোগ পায়নি। আমার বাবাও মুচির কাজ করে সংসার চালান। পরিবারের সাথে আমার থাকা হয় না।

দৈনিক ৩০০ টাকা উপার্জন করি জুতা সেলাই করে। দ্রব্য মূল্যের দাম চড়া। এতে কি আর সংসার চলে। পেটকে তো আর দমিয়ে রাখতে পারিনা। কর্ম করে খেতে চায় তাও পারছিনা। আমার কোনো নির্দিষ্ট বসার স্থান পাচ্ছি না। মেয়র সাহেবকে বলে পৌরসভার অফিসের অপর পাশে ভাসমান অবস্থায় ফুটপাতে বসে পেটের দায়ে কাজ করে যাচ্ছি। কিন্তু উচ্ছেদ অভিযান চলাকালীন সময়ে বারবার উঠে যেতে হয়। আমি বসার জন্য নির্দিষ্ট স্থান চাই। যেখানে আমার উচ্ছেদ হওয়ার ভয় থাকবে না। ‘নাচতে যখন নেমেছি ঘোমটা দিয়ে লাভ নেই’। আমি এখন পর্যন্ত দু’বার স্ট্রোক করেছি। গায়ে যতদিন শক্তি রয়েছে, কর্ম করে খেতে চাই। বুড়ো হয়ে গেলে যদি শক্তি না থাকে সৃষ্টি কর্তার কাছে প্রার্থনা করি তিনি ছাড়া যাতে কারও মুখাপেক্ষী না করান। তা না হলে বিষ খেয়ে আত্মহত্যা করবো।

তিনি আরো বলেন, সরকার কি আমাকে চোখে দেখেন না। কতো সুযোগ সুবিধা আসে, কই আমি তো কিছু পেলাম না। আমার কি বেঁচে থাকার অধিকার নেই। আমিও দু’বেলা দু’মুঠো খেয়ে শান্তিতে বেঁচে থাকতে চায়।

আমার ভাইয়ের ছেলেকে আমার সাথে নিয়ে এসেছি। এলাকার এক সরকারী স্কুল থেকে তৃতীয় শ্রেণীর বার্ষিক পরীক্ষা দিয়েছে। তার টিউশন ফি বাবদ মাসে দিতে হয় ৬০০ টাকা ।

ভাইটা মাতাল। নিজের কোনো ঠিক-ঠিকানা নেই। পঞ্চম শ্রেণী পর্যন্ত লেখাপড়া করিয়ে সেলুনে কাজ শিখতে দিয়ে দিবো। আমার খেয়াল রাখুক আর না রাখুক সে অন্তত নিজের মায়ের খেয়াল রাখতে পারবে।

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

সর্বশেষ

Welcome Back!

Login to your account below

Create New Account!

Fill the forms bellow to register

Retrieve your password

Please enter your username or email address to reset your password.

Add New Playlist