স্বামী বিবেকানন্দের ১২০তম প্রয়ান দিবস আজ

শেয়ার

বিশ্বের সনাতনী মহাপুরুষ দার্শনিক, লেখক, সংগীতজ্ঞ ভারতীয় হিন্দু সন্ন্যাসী নরেন্দ্রনাথ দত্ত “স্বামী বিবেকানন্দ” এর ১২০ তম প্রয়ান দিবস আজ। ১৯০২ সালের ৪ জুলাই ভারতের বেলুড় মঠে তিনি দেহ ত্যাগ করেন। প্রয়ানকালে তার বয়স হয়েছিল ৩৯ বছর। ১৮৬৩ সালের ১২ জানুয়ারি জন্মগ্রহণ করা সনাতনী এই উজ্জ্বল নক্ষত্র, ঔপন্যাসিক মহাপুরুষ স্বামী বিবেকানন্দের প্রয়ানের মধ্যে দিয়ে তাঁর জীবনের অবসান ঘটে।

তিনি হিন্দু সন্ন্যাসী, দার্শনিক, লেখক, সংগীতজ্ঞ এবং ঊনবিংশ শতাব্দীর ভারতীয় অতীন্দ্রিয়বাদী রামকৃষ্ণ পরমহংসের প্রধান শিষ্য ছিলেন। স্বামী বিবেকানন্দ কলকাতার গৌর মোহন মুখোপাধ্যায় স্ট্রিটের সিমলাতে এক উচ্চবিত্ত হিন্দু বাঙালি পরিবার বিশ্বনাথ দত্ত ও ভুবনেশ্বরী দেবীর ঘরে জন্মগ্রহণ করেছিলেন।

স্বামী বিবেকানন্দ ছোটোবেলা থেকেই আধ্যাত্মিকতার প্রতি আকর্ষিত হতেন। তাঁর গুরু রামকৃষ্ণ দেবের কাছ থেকে তিনি শেখেন, সকল জীবই ঈশ্বরের প্রতিভূ: তাই মানুষের সেবা করলেই ঈশ্বরের সেবা করা হয়। রামকৃষ্ণের মৃত্যুর পর বিবেকানন্দ ভারতীয় উপমহাদেশ ভালোভাবে ঘুরে দেখেন এবং ব্রিটিশ ভারতের আর্থ-সামাজিক অবস্থা সম্পর্কে প্রত্যক্ষ জ্ঞান অর্জন করেন। পরে তিনি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে গিয়ে ১৮৯৩ খ্রিষ্টাব্দের বিশ্ব ধর্ম মহাসভায় ভারত ও হিন্দুধর্মের প্রতিনিধিত্ব করেন। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, ইংল্যান্ড ও ইউরোপে তিনি হিন্দু দর্শনের বিভিন্ন দিক সম্পর্কে অসংখ্য সাধারণ ও ঘরোয়া বক্তৃতা দিয়েছিলেন এবং ক্লাস নিয়েছিলেন।

এই মহাপুরুষ রচিত গ্রন্থগুলির মধ্যে উল্লেখযোগ্য চিকাগো বক্তৃতা, কর্মযোগ, রাজযোগ, জ্ঞানযোগ, হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে বেদান্ত, ভারতে বিবেকানন্দ, ভাববার কথা, পরিব্রাজক, প্রাচ্য ও পাশ্চাত্য, বর্তমান ভারত, বীরবাণী মদীয় আচার্যদেব ইত্যাদি। বিবেকানন্দ ছিলেন সংগীতজ্ঞ ও গায়ক। তার রচিত দুটি বিখ্যাত গান হল “খণ্ডন-ভব-বন্ধন” (শ্রীরামকৃষ্ণ আরাত্রিক ভজন) ও “নাহি সূর্য নাহি জ্যোতি”।

এছাড়া “নাচুক তাহাতে শ্যামা”, “৪ জুলাইয়ের প্রতি”, “সন্ন্যাসীর গীতি” ও “সখার প্রতি” তার রচিত কয়েকটি বিখ্যাত কবিতা। “সখার প্রতি” কবিতার অন্তিম দুইটি চরণ– “বহুরূপে সম্মুখে তোমার ছাড়ি কোথা খুঁজিছ ঈশ্বর? জীবে প্রেম করে যেই জন, সেই জন সেবিছে ঈশ্বর।” এটি হলো স্বামী বিবেকানন্দের সর্বাধিক উদ্ধৃত একটি উক্তি।

স্বামী বিবেকানন্দ ছিলেন একজন হিন্দু সন্ন্যাসী, দার্শনিক, লেখক, সংগীতজ্ঞ এবং ঊনবিংশ শতাব্দীর ভারতীয় অতীন্দ্রিয়বাদী রামকৃষ্ণ পরমহংসের প্রধান শিষ্য। তিনি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপে হিন্দুধর্ম তথা ভারতীয় বেদান্ত ও যোগ দর্শনের প্রচারে প্রধান ভূমিকা গ্রহণ করেছিলেন। অনেকে ঊনবিংশ শতাব্দীর শেষার্ধে বিভিন্ন ধর্মমতের মধ্যে পারস্পরিক সুসম্পর্ক স্থাপন এবং হিন্দুধর্মকে বিশ্বের অন্যতম প্রধান ধর্ম হিসেবে প্রচার করার কৃতিত্ব বিবেকানন্দকে দিয়ে থাকেন। ভারতে হিন্দু পুর্নজাগরণের তিনি ছিলেন অন্যতম পুরোধা ব্যক্তিত্ব। সেই সঙ্গে ব্রিটিশ ভারতে তিনি ভারতীয় জাতীয়তাবাদের ধারণাটি প্রবর্তন করেন।

বিবেকানন্দ রামকৃষ্ণ মঠ ও রামকৃষ্ণ মিশন প্রতিষ্ঠা করেন। ১৮৯৩ খ্রিষ্টাব্দে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের শিকাগোয় বিশ্ব ধর্ম মহাসভায় “আমেরিকার ভাই ও বোনেরা ……..” এই বক্তব্যটি ছিলেন বিখ্যাত বক্তব্য। যার মাধ্যমেই পাশ্চাত্য সমাজে প্রথম হিন্দুধর্ম প্রচার করেন স্বামী বিবেকানন্দ।

তিনি শুধুমাত্র একজন সাত্ত্বিক পণ্ডিতই ছিলেন না, তিনি বাংলা ও ইংরেজি দুই ভাষাতেই একজন বিশিষ্ট বাগ্মী ও লেখক ছিলেন। তাঁর অধিকাংশ বই-ই হল বিশ্বের বিভিন্ন শহরে দেওয়া বক্তৃতার সংকলন। তিনি অনেকগুলি গান ও কবিতা লিখেছিলেন, যার মধ্যে “মৃত্যুরূপা মাতা” কবিতাটি অন্যতম। বিবেকানন্দের উপদেশগুলির মধ্যে রসবোধের পরিচয় পাওয়া যায় এবং তাঁর ভাষা ছিল সহজ-সাবলীল।

বাংলা রচনার ক্ষেত্রে তিনি মনে করতেন, ভাষা এমন হওয়া উচিত যা লেখকের পাণ্ডিত্য প্রদর্শনের বদলে, লেখকের বক্তব্যের মূল ভাবটিকে ফুটিয়ে তুলতে পারবে।

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

সর্বশেষ

Welcome Back!

Login to your account below

Create New Account!

Fill the forms bellow to register

Retrieve your password

Please enter your username or email address to reset your password.

Add New Playlist