মহেশখালীতে বন বিভাগের তিন দফা অভিযানেও থামেনি প্যারাবন কাটা

দখল হয়েছে ২৫০ একর, গাছ কাটা পড়েছে দশ হাজার

শেয়ার

কক্সবাজারের মহেশখালীতে অবৈধ চিংড়িঘের করতে কাটা হয়েছে বন বিভাগের সৃজিত প্যারাবনের প্রায় ১০ হাজার বাইনগাছ। দখল হয়েছে ২৫০ একর বন ভূমি। বন বিভাগ, পুলিশের অভিযানে থামানো যাচ্ছেনা ম্যানগ্রোভ ধ্বংসকারী ভূমি দস্যুুদের। গত ১০/১৫ দিনে প্রায় এক কিলোমিটার বাঁধ ও নির্মাণ করেছে তারা।

ক্ষতির পরিমাণ কোটি টাকা ছাড়িয়ে গেছে। বন ছাড়া প্রাণ প্রকৃতি ও জীববৈচিত্র্যের ক্ষতি সাধিত হয়েছে ব্যাপক।

মহেশখালী হোয়ানক ইউনিয়নের কলাগাজির পাড়া বগাচতর এলাকায় প্যারাবন ধ্বংস করে চিংড়িঘের তৈরি অব্যাহত থাকায় জনমনে নানা প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। বন বিভাগ কয়েক দফায় অভিযান চালানোর পরও ম্যানগ্রোভ ফরেষ্ট কাটা থামানো যাচ্ছে না। গত দুই সপ্তাহে ওই এলাকায় প্যারাবনের প্রায় ২৫০ একর জায়গা দখল করে চিংড়িঘেরের জন্য বাঁধ নির্মাণ করা হয়েছে। কাটা হয়েছে প্যারাবনের অন্তত ১০ হাজার বাইনগাছ। বন বিভাগ দিনের বেলায় পাহারা দেয়। কিন্তু গাছ কাটা হয় রাতে।

বন বিভাগের কর্মকর্তারা বলেন, এলাকাটি দুর্গম হওয়ায় রাতে পাহারা দেওয়া সম্ভব হয় না। এই সময়টাতে প্যারাবনের গাছ কাটা হচ্ছে।

এলাকাবাসী ও বন বিভাগ সূত্র জানায়, মো. এরশাদ নামের এক ব্যক্তির নেতৃত্বে প্যারাবন দখল করা হচ্ছে। তিনি পার্শ্ববর্তী কুতুবদিয়া উপজেলার বাসিন্দা। প্যারাবন উজাড়ে তাঁকে সহায়তা করছেন মো. নাজিম উদ্দিন, আবদুল মতিন ও শাহাদাত হোসেন নামের স্থানীয় তিন ব্যক্তি। শতাধিক শ্রমিক নিয়ে দিনদুপুরে তাঁরা প্যারাবন কেটে খননযন্ত্রের (এক্সকাভেটর) মাধ্যমে বাঁধ নির্মাণ শুরু করেন। তবে বন বিভাগের অভিযানের মুখে পড়ে এখন রাতের অন্ধকারে চিংড়িঘের নির্মাণের কাজ করছেন।

এব্যাপারে জানতে চাইলে মহেশখালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) প্রণব চৌধুরী বলেন, প্যারাবন নিধনের ঘটনায় জড়িত ব্যক্তিদের ধরতে পুলিশ চেষ্টা করছে।

বন বিভাগের কর্মকর্তারা জানান, প্যারাবন উজাড়ের খবর পেয়ে চলতি মাসে অন্তত তিন দফায় অভিযান চালানো হয়েছে। ১০, ১২ ও ১৪ জানুয়ারি পরিচালিত অভিযানে তিন দফায় চিংড়িঘেরের জন্য নির্মাণ করা বাঁধ কেটে দেওয়া হলেও দখলকারীরা আবার বনকর্মীদের অগোচরে বাঁধ নির্মাণ করেছেন। শুরুতে দুই হাজার গাছ কাটা হলেও অভিযানের পর কাটা হয়েছে আরও প্রায় আট হাজার গাছ।

চিংড়িঘেরের জন্য প্যারাবন দখলের ঘটনায় এরই মধ্যে আদালতে দুটি এবং মহেশখালী থানায় একটি মামলা করা হয়েছে বলেও জানান বন কর্মকর্তারা। মামলায় এরশাদসহ চারজনের নাম উল্লেখ করে শতাধিক ব্যাক্তিকে আসামী করা হয়েছে।

উপকূলীয় বন বিভাগের গোরকঘাটা রেঞ্জ কার্যালয় সূত্র জানায়, প্রাকৃতিক দুর্যোগ থেকে উপকূলকে রক্ষার লক্ষ্যে ১৯৯৮ থেকে ২০০০ সাল পর্যন্ত বন বিভাগের পক্ষ থেকে হোয়ানক ইউনিয়নের কালাগাজিরপাড়ার বগাচতর চিংড়িঘেরের পশ্চিমে অন্তত ৩০০ একর বনের জমিতে প্যারাবন সৃজন করা হয়। পরে আশপাশের এলাকায় চর জেগে উঠলে সেখানেও পর্যায়ক্রমে বাগান সৃজন করা হয়েছে।

বন বিভাগের স্থানীয় ঝাপুয়ার বিট কর্মকর্তা মোহাম্মদ মাহাবুবুল হক বলেন, মোহাম্মদ এরশাদের নেতৃত্বে একটি প্রভাবশালী সিন্ডিকেট চিংড়িঘেরের জন্য বাঁধ নির্মাণের সঙ্গে জড়িত। প্যারাবন দখল ও গাছ কাটার ঘটনায় তাঁদের বিরুদ্ধে তিনটি মামলা করা হয়েছে। কয়েক দফায় অভিযান চালিয়ে চিংড়িঘেরের বাঁধও কেটে দেওয়া হয়েছে।

বন বিভাগের মহেশখালীর গোরকঘাটা রেঞ্জ কর্মকর্তা এস এম আনিসুর রহমান বলেন, চিংড়িঘেরের বাঁধ করতে গিয়ে প্যারাবনের ছোট-বড় প্রায় দশ হাজার বাইনগাছ কাটা পড়ায় বন বিভাগের প্রায় কোটি টাকার ও বেশী ক্ষতি হয়েছে। ভূমিদস্যুরা প্রথমে শ্রমিক দিয়ে প্যারাবন নিধন করে। পরে খননযন্ত্র দিয়ে ওই সরকারি বনভূমি দখল করে অবৈধভাবে চিংড়িঘেরের বাঁধ তৈরি করেছে। একাধিকবার বাঁধ কাটার পর পুনরায় বাঁধ নির্মাণ করায় বন বিভাগের পাঁচ সদস্যের একটি টহল দল সেখানে নিয়োজিত রাখা হয়েছে। মহেশখালী থানার অফিসার ইনচার্জ প্রনব চৌধুরীর নেতৃত্বে পুলিশের একটি টীম আজ ২১ জানুয়ারী শনিবার ম্যানগ্রোভ ধ্বংসস্তূপ পরিদর্শন করেন।পরিদর্শন কালে বনকাটার ধ্বংসস্তূপ দেখে বিষ্ময় প্রকাশ করেন। শুধু যে বন কেটেছে তা নয় সাথে সাথে বাঁধ নির্মাণ করেছে ভূমিদস্যুচক্র।বন ধ্বংস ছাড়া ও প্রাণ প্রকৃতি জীববৈচিত্র্য ধ্বংস হয়েছে।

তিনি এ প্রতিবেদককে আরো বলেন, যারা এ কাজের সাথে জড়িত তাদের ধরতে পুলিশী অভিযান অব্যাহত থাকবে।

চট্টগ্রাম উপকূলীয় বনবিভাগের বিভাগীয় কর্মকর্তা ড, আবদুর রহমান বলেন, যেখানে বন কাটা হচ্ছে, জায়গাটি অত্যান্ত দূর্গম, তাই সার্বক্ষণিক বনকর্মীরা উপস্থিত থাকতে পারছেননা।কারণ দিনের বেলায় পাহারা বসানো হলে রাতে এসে তারা বন কাটে এবং বাঁধ নির্মাণ করে।সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের সার্বিক সহযোগিতা ছাড়া প্রভাবশালী বনখেকোদের দমন করা অসম্ভব।তারপর পর ও আমরা মাত্র ৬/৭ জনের একটি বনকর্মী টীম সেখানে দিবারাত্রি পাহারা বসিয়ে রেখেছি। বন ধ্বংসকারীদের থাবা থেকে বন রক্ষা করার জন্য।ইতিমধ্যে আধা কিলোমিটার বাঁধ ও কাটা হয়েছে।তারপরও ম্যানগ্রোভ ফরেষ্ট ধ্বংসকারীরা খুবই বেপরোয়া হয়ে উঠেছে।

কক্সবাজার পরিবেশ আন্দোলন বাপার সভাপতি ফজলুল কাদের চৌধুরী বলেন, এভাবে একের পর এক ম্যানগ্রোভ ফরেষ্ট ধ্বংস করে চিংড়ি ঘের নির্মাণ অব্যাহত থাকলে উপকূলের বা মহেশখালী দ্বীপের রক্ষাকবচ বলতে কিছুই থাকবেনা। কারণ, মহেশখালীতে হাজার হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে উন্নয়নের বহু মেগা প্রকল্পের কাজ চলছে। ম্যানগ্রোভ ফরেষ্ট ধ্বংসের ফলে দ্বীপের অস্তিত্বই যদি বিলীন হয়ে যায় এসব উন্নয়ন মানুষের কি কল্যাণে আসবে? তাই প্রাকৃতিক দূর্যোগের কবল থেকে জানমাল রক্ষা করার জন্য ম্যানগ্রোভ ফরেষ্ট রাখতে হবে অক্ষত। প্রয়োজনে দেশের আইন পরিবর্তন করে হলে ও ম্যানগ্রোভ ফরেষ্ট ধ্বংসকারীদের কঠোর আইনের আওতায় আনতে হবে। এব্যাপারে সরাসরি প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ ছেয়েছেন পরিবেশবাদী এই নেতা।

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

সর্বশেষ

Welcome Back!

Login to your account below

Create New Account!

Fill the forms bellow to register

Retrieve your password

Please enter your username or email address to reset your password.

Add New Playlist