টেকনাফ পৌর শহর সড়কের বেহাল দশা

শেয়ার

সড়ক খুলে দীর্ঘ দিন ধরে কাজ না করে ফেলে রাখায় ধুলোবালিতে জনজীবন অতিষ্ট হয়ে উঠেছে। বিশেষ করে সড়কের উভয় পাশে বসবাসকারীদের গাছপালা ধুলোবালিতে বিবর্ণ হয়ে পড়েছে।

টেকনাফ থেকে বাহারছড়া শামলাপুর ৩১ কিলোমিটার এলজিইডি সড়কটি কংক্রিটের পর কার্পেটিং না করেই খোলা অবস্থায় দীর্ঘদিন ধরে কাজহীন অবস্থায় পুরো সড়কটি পড়ে রয়েছে। পুরো এলাকা ধুলোবালিতে পরিনত হয়ে যাত্রী ও এলাকাবাসী চরম ভোগান্তিতে যাতায়ত করছে। এ অবস্থায় ধুলোবালিতে এলাকার মানুষ বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হচ্ছে। এভাবে কাজহীন পড়ে থাকা অবস্থায় বর্ষা শুরু হলে ভোগান্তি আরও বাড়বে।

জানা যায়, বিগত ২০২১-২০২২ অর্থ বছরে টেকনাফ থেকে শামলাপুর পর্যন্ত ৩১ কিলোমিটার সড়কটির উন্নয়ন কাজ শুরু হয়। এটি টেকনাফ এলজিইডি বাস্তবায়ন করছে। এ দীর্ঘ সড়কটি টেকনাফ ও বাহারছড়া সাগর উপকূলীয় এবং পাহাড়ী এলাকার অভ্যন্তরীণ সড়কটি জনগুরুত্বপূর্ণ। মেরিন ড্রাইভ সড়কের বিকল্প সড়ক হলেও দুই ইউনিয়ন টেকনাফ ও বাহারছড়া ইউনিয়নের বাসিন্দারা এ সড়ক দিয়ে উৎপাদিত পণ্য মাছ, পান, সুপারি, তরিতরকারি ও শাকসবজিসহ গ্রামীন অবকাঠামো উন্নয়নে একমাত্র সড়ক। এ অবস্থায় সড়ক দিয়ে স্থানীয় উৎপাদিত পণ্য সহজে বাজারজাত করতে বাধাগ্রস্থ হচ্ছে। সেই সাথে আইনশৃঙ্খলা পরিপন্থী মাদক মানব পাচার ও বনদস্যুদের অপকর্মের বিরুদ্ধে পুলিশের অভিযান বাধাগ্রস্ত হচ্ছে। ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানসমূহের চলমান উন্নয়ন প্রকল্পের কাজ বাস্তবায়নে ধীরগতি ও গাফিলতির কারণে এ সড়কের বেহাল অবস্থা বিরাজ করছে। এতে জনদুর্ভোগ বাড়ছে।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে টেকনাফ এলজিইডির প্রকৌশলী মো. আরিফ হোসেন বলেন, ‘সড়ক উন্নয়নের কাজ চলমান রয়েছে’।

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

সর্বশেষ

Welcome Back!

Login to your account below

Create New Account!

Fill the forms bellow to register

Retrieve your password

Please enter your username or email address to reset your password.

Add New Playlist