কক্সবাজার সৈকতে বছরের শেষ সূর্যাস্ত দেখলো পর্যটকরা

শেয়ার

২০২২ সালের শেষ দুই দিনই শুক্রবার ও শনিবার সাপ্তাহিক ছুটি পড়েছে। এই ছুটিতে প্রিয়জনদের সঙ্গে আনন্দ ভাগাভাগি ও শেষ সূর্যাস্ত দেখতে বিশ্বের দীর্ঘতম সমুদ্রসৈকত কক্সবাজারে ছুটে এসেছে লাখো পর্যটক। প্রতিবছরই ইংরেজি নতুন বছরকে বরণ ও পুরোনো বছরকে বিদায় দিতে এখানে দেশের নানা প্রান্ত থেকে মানুষ ছুটে আসে।

তবে এ বছর সমুদ্রসৈকতে থার্টি ফার্স্ট নাইট উপলক্ষে কনসার্ট বা বালিয়াড়িতে অনুষ্ঠান না থাকায় পর্যটকের উপড়ে পড়া ভিড় থাকছে না বলে জানান সংশ্লিষ্টরা। অবশ্যই তারকা মানের হোটেলগুলোতে পর্যটকদের জন্য নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় নানা অনুষ্ঠানের আয়োজন রয়েছে। কেবল গত সপ্তাহের বড়দিনসহ তিন দিনের ছুটিতে বেশি পর্যটক কক্সবাজার ভ্রমণে এসেছে। পর্যটকদের নিরাপত্তায় সতর্ক অবস্থায় রয়েছে জেলা প্রশাসন, ট্যুরিস্ট পুলিশ ও লাইফ গার্ডের সদস্যরা।

ট্যুরিস্ট পুলিশ কক্সবাজার জোনের সহকারী পুলিশ সুপার চৌধুরী মিজানুজ্জামান বলেন, পর্যটকদের সার্বিক নিরাপত্তায় বাড়তি টহল ও নজরদারি বাড়ানো হয়েছে।

ঢাকার ধানমন্ডি থেকে আগত পর্যটক দম্পতি ফরিদ-বৈশাখী বলেন, গত বছরের ৩১ ডিসেম্বর আমরা বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয়েছি। বিবাহ বার্ষিকী ও বছরের শেষ সূর্যাস্ত দেখতে আমরা আজ কক্সবাজার এসেছি।

ময়মনসিংহের ভালুকার পর্যটক রাসেল চৌধুরী বলেন, কালের গহ্বরে হারিয়ে গেলো আরও একটি বছর। ২০২২ কে বিদায় জানাতেই আমরা ৬ বন্ধু সমুদ্র শহরে এসেছি।

হোটেল দ্যা কক্স ট্যুরের জিএম আবু তালেব শাহ বলেন, থার্টি ফার্স্ট নাইট উপলক্ষে হোটেলে কোন আয়োজন নেই। তবে ৮০ শতাংশ রুম বুকিং রয়েছে।

হোটেল মোটেল অনার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি রাজা শাহ আলম চৌধুরী বলেন, আগত পর্যটকদের সেবা দেওয়ার জন্য আমরা সবসময় চেষ্টা করি। কোন হোটেলে অতিরিক্ত ভাড়া নেওয়া হচ্ছে না বলে জানান তিনি।

এদিকে টুরিস্ট পুলিশ কক্সবাজার রিজিয়নের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জিল্লুর রহমান বলেন, বছরের শেষ সূর্য ডোবার দৃশ্য দেখতে যেসব পর্যটক কক্সবাজার আগমন ঘটেছে তাদের নিরাপত্তায় বিশেষ ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। সৈকতে রাতে যেসব পর্যটক থাকবে তাদের নিরাপত্তা দেওয়া হবে। রাতে সৈকতে কোন ধরনের অনুষ্ঠান হবে না। তবে পর্যটকরা অবশ্যই সৈকতে থাকবে।

কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক মো. শাহীন ইমরান বলেন, বছরের শেষ ও নতুন দিন দেখার জন্য যেসব পর্যটক কক্সবাজার আগমন ঘটেছে তাদের নিরাপত্তার জন্য পর্যটন সেল থেকে বিশেষ ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। পর্যটকরা যাতে কোন প্রকার হয়রানির শিকার না হয় সেজন্য চারজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে চারটি টিম সমুদ্র সৈকত সহ আশপাশের এলাকায় দায়িত্ব পালন করছে।

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

সর্বশেষ

Welcome Back!

Login to your account below

Create New Account!

Fill the forms bellow to register

Retrieve your password

Please enter your username or email address to reset your password.

Add New Playlist