রেলের টিএলআর শ্রমিকদের বেকারত্বের দিকে ঠেলে দিবেন না

শেয়ার

দীর্ঘ সময় ধরে বাংলাদেশ রেলওয়েতে অস্থায়ী ভিত্তিতে বিভিন্ন দপ্তরে নিয়োজিত আছেন টিএলআর শ্রমিকগণ। তারা নানা প্রতিকূল মুহূর্তেও নিরলসভাবে নিজ দায়িত্ব পালন করছেন। বিশেষ করে রেলওয়ের অস্থায়ী গেইট কিপারেরা রোদ বৃষ্টি ঝড় উপেক্ষা করে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কাজ করছে নিরাপদ ট্রেন চলাচলে।

যদিও তারা ঠিকমতো মাসিক বেতনটুকু পান না। তাদের নেই কোন ছুটি। এভাবেই বছরের পর বছর চাকুরি করে যাচ্ছেন এবং পরিবার নিয়ে জীবন যাপন করছেন। কেউ দীর্ঘ ১৬ বছর, কেউবা ১৪ বছর, আবার অনেকে ১২-৮ বছর ধরে একই পদে টিএলআর হিসেবে কাজ করে আসছেন।

রেলওয়ের নিয়ম অনুযায়ী ৩ বছর চাকুরী বয়স হবার পর স্থায়ী না করায় অনেকেই আদালতের দারস্থ হয়ে অস্থায়ী থেকে স্থায়ী নিয়োগ পাচ্ছেন। এই প্রক্রিয়ার অসংখ্য টিএলআর শ্রমিকদের চাকুরী স্থায়ী হচ্ছে। কিন্তু এখানেও রেলওয়ে প্রশাসন আদালতের রায় কার্যকরে গড়িমসি করছেন।

হঠাৎ টিএলআর শ্রমিকদের বাদ দেওয়ার জন্য রেলওয়ে প্রশাসন জনবল সংকট দেখিয়ে আউটসোর্সিংয়ের মাধ্যমে জনবল নিয়োগ প্রক্রিয়া শুরু করতে যাছে। এ নিয়ে প্রজ্ঞাপন জারি হলে শ্রমিকদের মধ্যে অসন্তোষ দেখা দেয় এবং বিভিন্ন দপ্তরে চলে বিক্ষোভ আন্দোলন।

গত ৩০ জুন হতে অস্থায়ী শ্রমিকদের অব্যহতি দেওয়ার কার্যক্রম শুরু হয় বিভিন্ন দপ্তর থেকে।এই নিয়ে টিএলআর শ্রমিকদের মধ্যে চাকরি হারানোর আতংক ছড়িয়ে পড়েছে দেশের সবখানে।

রেলওয়ের বিভিন্ন সংগঠনের শ্রমিক নেতারা শুরু থেকেই আউটসোর্সিং প্রথা বাতিল ও টিএলআর শ্রমিকদের অব্যহতির প্রতিবাদ করে এসেছেন। আমিও তাদের মধ্যে একজন।

আমার প্রশ্ন হচ্ছে – রেলওতে জনবল সংকট দেখিয়ে আউটসোর্সিংয়ের মাধ্যমে শ্রমিক নিতে হবে কেনো? যেসকল শ্রমিকরা দীর্ঘদিন ধরে টিএলআর হিসেবে কাজ করে আসছে তাদের স্থায়ী করলেতো সমস্যার সমাধান হয়ে যায়। তাছাড়া যারা দীর্ঘদিন তাদের শ্রমে এই রেলপথ টিকিয়ে রেখেছে তাদের অবমূল্যায়ন কেন করতে হবে? আমি মনে করি টিএলআর শ্রমিকদের বাদ দেওয়ার জন্য এটি রেলওয়ের একটি সূক্ষ্ম কৌশল।

বর্তমানে কর্মরত প্রায় ৮০ হাজার শ্রমিকদের যদি অব্যহতি দেয়া হয় তাহলে এই মানুষ গুলো তাদের পরিবার নিয়ে কোথায় যাবে? কি করবে?

রেলের এক শ্রেণীর অসাধু কর্মকর্তারা সুকৌশলে রেলবান্ধব সরকার জননেত্রী শেখ হাসিনা সরকারের ভাবমূর্তি নষ্ট করতে মরিয়া হয়ে আছে। তাই এই বিষয়ে সরকারের উচ্চ মহলের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি। পাশাপাশি আমরা নিম্নোক্ত ৬টি দাবি উপস্থাপন করেছি।

দাবী সমুহ-

১. যেসকল টিএলআর শ্রমিকদের চাকুরির বয়স ৩ বছর পার হয়েছে সকলকে দ্রুত স্থায়ীভাবে নিয়োগ দিতে হবে।

২. টিএলআর শ্রমিকদের বেতন সময়মতো পরিশোধ করতে হবে।

৩. আউটসোর্সিং প্রক্রিয়া বাতিল করতে হবে।

৪. রেলওয়ে নিয়োগ বিধি-২০২০ দ্রুত সংশোধন করতে হবে।

৫. কর্তব্যরত অবস্থায় মৃত্যুবরণকারী রেলওয়ে কর্মচারীর পোষ্যকে সরাসরি নিয়োগের ব্যবস্থা করতে হবে।

৬. রেলওয়েকে প্রাইভেট সেক্টরে দেওয়ার ষড়যন্ত্র বন্ধ করতে হবে।

লেখক:মোহাম্মদ হোসেন

রেল শ্রমিক নেতা

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

সর্বশেষ

Welcome Back!

Login to your account below

Create New Account!

Fill the forms bellow to register

Retrieve your password

Please enter your username or email address to reset your password.

Add New Playlist