গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয় কর্তৃক নিবন্ধিত। নিবন্ধন নং – ৬০
Sunday, 19 May 2024

শূন্য রেখা থেকে সরে আসা দেড় হাজার রোহিঙ্গার হদিস নেই

এইচ এম ফরিদুল আলম শাহীন ,  কক্সবাজার ব্যুরো

শূন্য রেখায় আটকেপড়া ৬৩০টি পরিবারের প্রায় সাড়ে চার হাজার রোহিঙ্গার মধ্যে প্রায় দেড়হাজারের কোন হদিস নেই। সাড়ে চারহাজার রোহিঙ্গার দেখভাল করত আন্তর্জাতিক রেডক্রস ও রেডক্রিসেন্ট কমিটি (আইআরসিআরসি)। এই সংস্থার দেওয়া রেশনেই চলত তাদের জীবন। 

সম্প্রতি মিয়ানমারের নাগরিক রোহিঙ্গাদের সশস্ত্র সংগঠন ‘আরসা ও আরএসও’র সংঘাতের জেরে শূন্যরেখার ক্যাম্প থেকে পালিয়ে বাংলাদেশে এসেছে প্রায় তিন হাজার রোহিঙ্গা।

জরিপ ও অনুসন্ধান চালিয়ে এখন দেখা যাচ্ছে, এদের প্রায় দুই হাজারই আগে থেকেই বিভিন্ন শরণার্থী শিবিরে নিবন্ধিত ছিলেন। কিন্তু নানা কারণে তারা শরণার্থী শিবির ছেড়ে শূন্যরেখার ক্যাম্পে গিয়ে আশ্রয় নিয়েছিলেন।

কেন তারা ‘মূল স্রোতের’ শরণার্থী শিবিরের জীবন থেকে বেরিয়ে গিয়ে ‘তুলনামূলক সামাজিক যোগাযোগহীন ও অধিকতর অনিরাপদ ও ঝুঁকিপূর্ণ’ শূ্ন্যরেখার ক্যাম্পে গিয়ে বসবাস করতেন?

এর উত্তরে কক্সবাজারের টেকনাফ ও উখিয়া উপজেলার ৩৩টি অস্থায়ী ক্যাম্পে নিবন্ধিত রোহিঙ্গা শরণার্থীদের দেখভালের দায়িত্বে থাকা শরণার্থী, ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশন (আরআরআরসি) এবং রোহিঙ্গাদের নিরাপত্তার দায়িত্বপ্রাপ্ত আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী আর্মস পুলিশ ব্যাটালিয়ন (এপিবিএন) ভিন্ন ভিন্ন কারণের কথা জানিয়েছেন।

মিয়ানমার সীমান্তে ধারাবাহিক সংঘাতের এক পর্যায়ে গত ১৮ জানুয়ারি নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার কোনারপাড়া শূন্যরেখা ক্যাম্পে আরাকান রোহিঙ্গা স্যালভেশন আর্মি (আরসা) এবং আরাকান রোহিঙ্গা সলিডারিটি অরগানাইজেশনের (আরএসও) মধ্যে ব্যাপক গোলাগুলির ঘটনা ঘটে। এতে একজন নিহত এবং এক শিশুসহ দুই রোহিঙ্গা আহত হন।

ওইদিন পুরো ক্যাম্পটিতে আগুন ধরিয়ে দেওয়া হয়। তখন শুধু জীবন হাতে নিয়ে ক্যাম্প ছাড়তে বাধ্য হন সেখানকার রোহিঙ্গারা। তাদের একটি অংশ বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার তুমব্রু সীমান্তে এসে আশ্রয় নেয়। সেখানেই খোলা আকাশের নীচে অস্থায়ী শামিয়ানা টাঙ্গিয়ে গত দুই সপ্তাহ ধরে তারা জীবন কাটাচ্ছে।

এসব রোহিঙ্গার বিষয়ে পদক্ষেপ নিতে প্রশাসন, আরআরআরসি, আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী ও আন্তর্জাতিক সংস্থা প্রতিনিধিদের নিয়ে একটি জাতীয় টাস্কফোর্স কমিটি গঠিত হয়। সেই কমিটি গত রোববার ও সোমবার দুদিনে প্রথমে তাদের গণনার কাজ শেষ করে।

মঙ্গলবার শরণার্থী, ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশন (আরআরআরসি) জরিপের ফলাফল ঘোষণা করে জানায়, শূন্যরেখা থেকে পালিয়ে তুমব্রুতে আশ্রয় নিয়েছে ৫৫৮টি রোহিঙ্গা পরিবারের ২ হাজার ৯৭০ জন সদস্য। তাদের উখিয়া ও টেকনাফের বিভিন্ন ক্যাম্পে স্থানান্তরের জন্য সিদ্ধান্ত নিয়েছে টাস্কফোর্স।

পালিয়ে আসা রোহিঙ্গার বিষয়ে ব্যবস্থা নিতে একটি জাতীয় টাস্কফোর্স কমিটি গঠিত হয় এরই অংশ হিসেবে এসব রোহিঙ্গা আগে থেকে কোনো ক্যাম্পে নিবন্ধিত কি-না সেটাও যাচাই-বাছাই করা হয়। যাচাই-বাছাই শেষে জানানো হয়, এদের মধ্যে দুই-তৃতীয়াংশ রোহিঙ্গা আগে থেকেই কক্সবাজারের বিভিন্ন ক্যাম্পের নিবন্ধিত। তারা সেখানে বাসিন্দা হিসেবে ছিলেন। পরে কোনো সময় তারা সেখান থেকে শূন্যরেখায় গিয়েছেন। বাকি এক-তৃতীয়াংশ অনিবন্ধিত। তারা আগে থেকেই শূন্যরেখার ক্যাম্পে বসবাস করছিলেন।

তাহলে প্রায় দুই হাজার রোহিঙ্গা কেন শিবির ছেড়ে সেখানে গিয়েছিলেন- এর জবাবে শরণার্থী, ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার মো. মিজানুর রহমান চৌধুরী বলেন, “অনেকগুলো কারণ থাকতে পারে। দুটি স্থানের ক্যাম্পের ব্যবস্থাপনা সম্পূর্ণ আলাদা। দুটি জায়গায় দুটি তরফ থেকে রেশন ও অন্যান্য সুবিধা পেয়ে থাকেন রোহিঙ্গারা। তখন ডবল রেশনের লোভেও তারা সেখানে যেতে পারেন।”

“শূন্যরেখায় বাংলাদেশ বা মিয়ানমারের প্রশাসন, আইনশৃঙ্খলা বাহিনী কারও কোনো প্রভাব নেই। অনেক সময় দেখা যায়, এখানে শিবিরে রোহিঙ্গারা অপরাধ করে। তাদের নামে মামলা ও গ্রেপ্তারি পরোয়ানা হয়। সেই মামলা থেকে বাঁচতে তারা সেখানে চলে যায়। ফলে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী তাদের নাগাল পায় না। ফলে অপরাধ করে পার পেতে সেখানে চলে যেতে পারেন। সেটাও হতে পারে।”

নিষেধাজ্ঞার পরেও তারা ক্যাম্প ছেড়ে বেরিয়ে শূন্যরেখায় কীভাবে গেল- এমন প্রশ্নের জবাবে মিজানুর রহমান আরও বলেন, “এখানে আমাদের আইনশৃঙ্খলা বাহিনী নিরাপত্তার দায়িত্বে আছে। তারা সবটুকুই করেন। বিরাট ক্যাম্প। এখানকার নিবন্ধিত রোহিঙ্গাদের মধ্যে কেউ অপরাধী হলে সেটা আইনশৃঙ্খলা বাহিনী দেখবে।“

রোহিঙ্গা ক্যাম্পের নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা ১৪ এপিবিএনের অধিনায়ক অতিরিক্ত উপ-মহাপরিদর্শক সৈয়দ হারুন অর রশিদ বলেন, “ক্যাম্পের নিরাপত্তায় সর্বোচ্চ জোরদার করা হয়েছে। তারপরও চোরাই পথে হয়তো কেউ কেউ বাইরে চলে যায়। তাদের ধরে আবার ক্যাম্পে ফিরিয়ে আনা হয়।“

তিনি আরও বলেন, “এখন রোহিঙ্গাদের মধ্যে যারা মামলার আসামি; তারা ক্যাম্পে ফিরলে অবশ্যই আমরা তাদের গ্রেপ্তার করব, আইনের আশ্রয় নেব।”

আরআরআরসির পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, নিবন্ধিতদের স্ব স্ব ক্যাম্পেই ফেরত পাঠানো হবে। তাদের যাদের বিরুদ্ধে মামলা ও অপরাধে জড়িত থাকার অভিযোগ আছে তা আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে জানিয়ে দেওয়া হবে। আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী নিজেরাও এ ব্যাপারে তথ্য সংগ্রহ করছে। নিবন্ধনের আওতায় থাকা রোহিঙ্গাদের আপাতত উখিয়ার কুতুপালং ক্যাম্প সংলগ্ন ট্রানজিট ক্যাম্পে রাখা হবে।

শূন্যরেখায় থাকা সাড়ে চার হাজার রোহিঙ্গার মধ্যে দুই হাজার ৯৭০ জন রোহিঙ্গার তথ্য পাওয়া গেলেও বাকিরা কোথায়- তা বলতে পারছেন না কেউ।

তবে এ ব্যাপারে প্রশাসন খোঁজ-খবর নিচ্ছে জানিয়ে আরআরআরসি মিজানুর রহমান চৌধুরী বলেন, “প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে, এসব রোহিঙ্গাদের কেউ কেউ মিয়ানমার অভ্যন্তরে চলে গেছে বা বাংলাদেশের কোথাও আত্মগোপন করেছে অথবা বিভিন্ন ক্যাম্পে আশ্রয় নিয়েছে।

সর্বশেষ

ফটিকছড়িতে বজ্রপাতে দগ্ধ যুবকের মৃত্যু

বজ্রপাতে দগ্ধ হয়ে ১২ দিন মৃত্যুর সাথে যুদ্ধ করে...

বান্দরবানে কেএনএফের আস্তানায় যৌথ বাহিনীর অভিযান, নিহত ৩

বান্দরবানের রুমা উপজেলার রনিন পাড়ার কাছে ডেবাছড়া এলাকায় কেএনএফের...

বাজারে থাকা এসএমসি প্লাসের সব ইলেক্ট্রোলাইট ড্রিংকস প্রত্যাহারের নির্দেশ 

মানবদেহের জন্য ক্ষতিকর  এসএমসি প্লাসের বাজারে থাকা সব ইলেক্ট্রোলাইট...

তরুণদের চাকরির পেছনে না ছুটে উদ্যোক্তা হওয়ার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

দেশের তরুণদের চাকরির পেছনে না ছুটে উদ্যোক্তা হওয়ারও আহ্বান...

শেষ মুহূর্তে প্রচারনায় মুখরিত কাপ্তাইয়ের বিভিন্ন জনপদ 

আগামী ২১ মে কাপ্তাই উপজেলা পরিষদ নির্বাচনকে সামনে রেখে...

এভারেস্ট জয় করলেন চট্টগ্রামের বাবর আলী

পঞ্চম বাংলাদেশি হিসেবে বিশ্বের সর্বোচ্চ শৃঙ্গ মাউন্ট এভারেস্ট জয়...

আরও পড়ুন

বাজারে থাকা এসএমসি প্লাসের সব ইলেক্ট্রোলাইট ড্রিংকস প্রত্যাহারের নির্দেশ 

মানবদেহের জন্য ক্ষতিকর  এসএমসি প্লাসের বাজারে থাকা সব ইলেক্ট্রোলাইট ড্রিংকস প্রত্যাহারের নির্দেশ দিয়েছেন বিশুদ্ধ খাদ্য আদালত। একই সঙ্গে বাজারজাতকারী একমি'র তানভীর সিনহাকে ১৬ লাখ...

শেষ মুহূর্তে প্রচারনায় মুখরিত কাপ্তাইয়ের বিভিন্ন জনপদ 

আগামী ২১ মে কাপ্তাই উপজেলা পরিষদ নির্বাচনকে সামনে রেখে শেষ মুহূর্তে  প্রচার প্রচারনায় জমে উঠেছে কাপ্তাইয়ের বিভিন্ন জনপদ। জয়ের জন্য মরিয়া হয়ে ছুটছেন তিন...

সভাপতি-সা.সম্পাদকের বির্তকিত কর্মকান্ডে চট্টগ্রাম কলেজ ছাত্রলীগের কমিটি বিলুপ্ত

সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকের নানা বিতর্কিত কর্মকাণ্ডের অভিযোগে চট্টগ্রাম কলেজ শাখা ছাত্রলীগের কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা করা হয়েছে।শনিবার (১৮ মে) রাতে চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রলীগের সভাপতি ইমরান আহমেদ...

তরুণরাই স্মার্ট বাংলাদেশের অভিযাত্রার সূর্য সারথি: তথ্য ও সম্প্রচার সচিব

তথ্য ও সম্প্রচার সচিব মোঃ হুমায়ুন কবীর খোন্দকার বলেন, বাংলাদেশের জনসংখ্যার মধ্যে শতকরা ৬৮ ভাগ হলো কর্মক্ষম জনসংখ্যা। আবার এদের মধ্যে অধিকাংশ হলো যুবক।...