রাঙ্গুনিয়ায় নদী খনন করতে গিয়ে খাল ভরাট 

শেয়ার

নাব্যতা ফিরিয়ে আনার পাশাপাশি নদীভাঙন ঠেকাতে কর্ণফুলী নদীর রাঙ্গুনিয়া অংশে নদী খননের (ড্রেজিং) কাজ চলছে। কিন্তু নদী খনন করতে গিয়ে বালু ফেলে একটি খাল ভরাট করে ফেলছে কর্তৃপক্ষ। এছাড়াও বন্ধ করে ফেলেছে আরেকটি খালের সংযোগ মুখ। 

রাঙ্গুনিয়া উপজেলার নদীতীরবর্তী ইউনিয়ন মরিয়ম নগরের কাটাখালী এলাকা থেকে কর্ণফুলী নদীর সাথে সংযুক্ত এই মরিয়ম নগর কর্ণফুলী খালের দৈর্ঘ্য প্রায় দেড় কিলিমিটার, প্রস্থে প্রায় ৫০ মিটার। কর্ণফুলী নদী খননের উত্তোলিত বালু পাইপ দিয়ে স্তুপ করে ফেলা হচ্ছে নদী সংলগ্ন চর ও নদীর সাথে সংযুক্ত ওই প্রবাহমান খালে। এতে ওই মরিয়ম নগর কর্ণফুলী খালের প্রায় ১ কিলোমিটারেরও বেশি খাল ভরাট হয়ে বন্ধ হয়ে গেছে খালের পানি প্রবাহ ও নৌযান চলাচল। যারফলে জলাভূমির শ্রেনী বিন্যাশে হুমকির মুখে পড়বে প্রাকৃতিক পরিবেশ ও জীববৈচিত্র্য।

সরেজমিনে ঘুরে দেখা গেছে, কর্ণফুলী নদী তীরবর্তী ইউনিয়ন মরিয়ম নগরের কাটাখালী থেকে পশ্চিমে ১৪০০ মিটার নদী খননের কাজ করছে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান বসুন্ধরা ইঞ্জিনিয়ারিং। আর কাটাখালী থেকে পূর্বে কদমতলী-চন্দ্রঘোনা ইউনিয়নের দিকে ১৬০০ মিটার নদী খননের কাজ করছে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান ওয়েস্টার্ন ইঞ্জিনিয়ারিং। এ দুটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানেরই নদী খননের শুরুর পয়েন্ট কাটাখালী এলাকায়। সেখানে কর্ণফুলী নদীর সাথে সংযুক্ত ২টি প্রবাহমান খালের সংযোগ ছিল। একটি খাল কর্ণফুলী নদী থেকে শুরু হয়ে কাটাখালীর উত্তরে গুমাই বিলের কুলকুরমাই খালের সাথে মিলিত হয়েছে অন্যটি মরিয়ম নগর কর্ণফুলী খাল যেটি কর্ণফুলী নদী থেকে শুরু হয়ে কাটাখালীর পশ্চিমে ফুলগাজী পাড়া হয়ে আবারও কর্ণফুলী নদীর সাথে মিলিত হয়েছে। নদী খননের উত্তোলিত বালু ফেলে কর্ণফুলী নদীর সাথে সংযুক্ত এ দুটি প্রবাহমান খালের সংযোগ মুখ ভরাট করে বন্ধ করে ফেলেছে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান ওয়েস্টার্ন ইঞ্জিনিয়ারিং ও বসুন্ধরা ইঞ্জিনিয়ারিং। এছাড়াও কর্ণফুলী নদীর সাথে সংযুক্ত মরিয়ম নগর খালের কাটাখালী থেকে পশ্চিমে ফুলগাজী পাড়া এলাকা পর্যন্ত প্রায় ১ কিলোমিটারেরও বেশি খাল ভরাট করে ফেলেছে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান বসুন্ধরা ইঞ্জিনিয়ারিং।

গত কয়েক দশক ধরে ওই প্রবাহমান খাল ব্যবহার করে জীবন-যাপন করছেন স্থানীয়রা। এমনকি স্থানীয়দের গোটা একটা অংশের দৈনন্দিন গোসল ও নিত্যদিনের ধোয়ামোছার কাজ থেকে শুরু করে ব্যবসা-বাণিজ্য ও জীবিকার উৎস ছিলো এই খাল ঘিরেই। অথচ নদী খনন করতে গিয়ে খাল ভরাট হয়ে চরে পরিণত হওয়ায় বিপাকে পড়েছেন স্থানীয়রা। এছাড়াও এক শ্রেণির স্থানীয়রা ভরাট হওয়া খালের জায়গা জবরদখলে মরিয়া হয়ে উঠেছে। খাল ভরাট হওয়ার সাথেসাথেই অনেকেই বালিতে বাঁশ-কাঠের খুঁটি পুতে ও বাঁশের বেড়া দিয়ে খালের জায়গা দখল করে রাখছে বলেও অভিযোগ স্থানীয়দের।

কাপ্তাই থেকে বাঁশ এনে মরিয়ম নগর খালে বাঁশের চালি গুঁছিয়ে চকরিয়া-সাতকানিয়া ও কক্সবাজারে পৌঁছে দেওয়ার মাঝি কামাল বলেন, “গত ৬ বছর ধরে কাপ্তাই থেকে বাঁশ এনে এই খালে রেখে পরিস্কার করে গুঁছিয়ে বেঁধে চকরিয়া থেকে কক্সবাজার পর্যন্ত বিভিন্ন জেলায় ও উপজেলায় পৌঁছে দিতাম। এতে বছরে ৯মাস গড়ে দৈনিক ২০জন মানুষের কর্মসংস্থান হতো। এখন এ খাল ভরাট হয়ে যাওয়ায় সে ব্যবসাও বন্ধ হতে চলেছে।

নদী খনন করে খাল ভরাট প্রসঙ্গে জানতে চাইলে কর্ণফুলী নদী ড্রেজিং প্রকল্পের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান বসুন্ধরার তদারকি কর্মকর্তা আখতারুজ্জামান ও প্রকল্প ব্যবস্থাপক সুজন আহমেদ জানান, “নদী খনন প্রকল্পে কাটাখালী থেকে পশ্চিমে আমাদের ১৪০০ মিটার কাজের মধ্যে প্রায় ১কিমি মতো খনন করেছি। তবে কাটাখালী অংশের খালের মুখ ভরাট করেছে ওয়েস্টার্ন ইঞ্জিনিয়ারিং। এরপর থেকে ভরাট করছি আমরা। এতে অবশ্য পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্দেশনা ও স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানের সম্মতি আছে বলেই আমরা খাল ভরাট করছি”।

তবে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান বসুন্ধরার দাবী মরিয়ম নগর ইউপি চেয়ারম্যান মুজিবুল হক হিরো স্বীকার করলেও এ দাবী অস্বীকার করেছেন পানি উন্নয়ন বোর্ড কর্তৃপক্ষ, নদী খননের আরেক ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান ওয়েস্টার্ন ইঞ্জিনিয়ার কর্তৃপক্ষ।

ইউপি চেয়ারম্যান মুজিবুল হক হিরো বলেন, “এ মরিয়ম নগর কর্ণফুলী খাল ভরাটের জন্য মরিয়ম নগর বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে একটা আবেদন দিয়েছে কর্তৃপক্ষকে সেখানে আমি সুপারিশ করেছি। খাল ভরাট হলে স্থানীয় কয়েকজন বাঁশের ব্যবসায়ীর জন্য অসুবিধা হলেও শতশত মানুষের ঘরবাড়ি জন্য ভালো হলে। খাল-নদী ভাঙ্গনও রোধ হবে”।

ওয়েস্টার্ন ইঞ্জিনিয়ারিং এর প্রকল্প ব্যবস্থাপক সরোয়ার আলম বলেন, “আমরা মরিয়ম নগর কর্ণফুলী খাল ভরাট করিনি। নদী খনন প্রকল্পে কাটাখালীর পূর্বে আমাদের ১৬০০ মিটার কাজের মধ্যে প্রায় ১কিলোমিটারেরও বেশি কাজ এগিয়েছে। তবে আমাদের ড্রেজিং এ যদি গুমাই বিলের কুলকুরমাই এর সংযোগ খালের মুখ ভরাট হয়ে থাকে তাহলে আমরা তা খনন করে দেবো। নদী ড্রেজিং করতে গিয়ে আমরা তো আর খাল ভরাট করতে পারিনা”।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে পানি উন্নয়ন বোর্ডের রাঙামাটি জেলার নির্বাহী প্রকৌশলী তয়ন কুমার ত্রিপুরা বলেন, “খাল ভরাটের বিষয়ে বসুন্ধরা ভুল তথ্য দিছে। নদী খননের বালি রাখতে গিয়ে ২-৩টা খালের মুখ বন্ধ হয়ে গেছে। হয়তো শুষ্ক মৌসুমে খালে পানি কম থাকায় আপাতত বালি রাখা হচ্ছে। তবে এ নিয়ে উদ্ধিগ্নতার কিছুই নেই। ড্রেজিং থেকে উত্তোলিত বালুগুলো মাসখানেকের মধ্যে জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে নিলাম করে সরকারের রাজস্ব খাতে জমা করা হবে। এবং খালগুলোও আগের মতো করে দেওয়া হবে। আর এখানে খালের জায়গা জবরদখলের সুযোগ নেই”।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে চট্টগ্রাম নদী ও খাল রক্ষা আন্দোলনের সাধারণ সম্পাদক আলীউর রহমান বলেন, “সরকারের নির্দেশনা অনুযায়ী কোনো খাল ভরাট, খালের অংশ পরিবর্তন বা সীমানা পরিবর্তন করা যাবে না। যেখানে প্রত্যেকটি নদী ও শাখা খালকে জীবন্ত ঘোষণা করা হয়েছে সেখানে কোনোরকম প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করলে জেলা প্রশাসক আইনানুগ ব্যবস্থা নিতে বাধ্য। না হলে আমরা আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নিবো”।

এদিকে রাঙ্গুনিয়ায় কর্ণফুলী নদী খনন করতে গিয়ে খাল ভরাট ও খালের জায়গা জবরদখলের বিষয়ে কিছুই জানেন না বলেছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আতাউল গনি ওসমানী। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, “যদি খাল ভরাট হয়ে থাকে তাহলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে”।

সংশ্লিষ্টদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, অতিবৃষ্টি, বন্যা, নদীতীরের ভাঙনসহ নানা প্রাকৃতিক কারণে নদীতে পলি জমে নদীর গভীরতা কমে যায়। যারফলে নদীতে পানি কমে যায়, পানির স্তর উপরে উঠে আসে, নদীর গতিপথ পরিবর্তন হয়ে নদী ভাঙনের সৃষ্টিসহ নানা সমস্যা পরিলক্ষিত হয় বিধায় কাজেই নদীর নাব্যতা বাড়িয়ে নদীর গতিপথ ঠিক রাখতে নদী ড্রেজিংয়ের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

এতে কর্ণফুলী নদীর রাঙ্গুনিয়া অংশে উভয় তীরে ১৪০ কোটি টাকা ব্যায়ে নদী ড্রেজিং করা হবে ১০ কিমি। বসুন্ধরা, ওয়েস্টার্ন ইঞ্জিনিয়ারিং, ন্যাশনাল ডেভেলপমেন্ট ইঞ্জিনিয়ারিং, এডব্লিউআর ও একটি সাব ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানসহ মোট

৫টি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান কাজ করছে এ কর্ণফুলী নদীর ড্রেজিং প্রকল্পে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন পানি উন্নয়ন বোর্ড (রাঙামাটি)।

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

সর্বশেষ

Welcome Back!

Login to your account below

Create New Account!

Fill the forms bellow to register

Retrieve your password

Please enter your username or email address to reset your password.

Add New Playlist