একের পর এক মানুষের মৃত্যুও যাদের কানে পৌঁছায় না!

দুই উপজেলায় দশ বছরে হাতির আক্রমণে ১১ জনের প্রাণহানি

শেয়ার

দক্ষিণ চট্টগ্রামের দুই উপজেলা আনোয়ারা-কর্ণফুলীতে গত দশ বছরে বণ্যহাতির আক্রমণে প্রাণ হারিয়েছে ১১ জনেরও অধিক। এই একের পর এক নির্মম মৃত্যুতেও সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষ কিংবা বন বিভাগ কার্যত কোন সোচ্চার হয়ে ওঠেনি। মানুষের জীবন রক্ষায় তাঁদের কোন পদক্ষেপ নেই বললেই চলে।

অনুসন্ধান বলেছে, পাহাড় কেটে সাবাড় করে ফেলায় বন্যপ্রাণী অভয়ারণ্যের উপর মারাত্মক প্রভাব পড়েছে। আবাসস্থল ও বিচরণক্ষেত্র হারিয়ে পাগলপ্রায় বণ্য হাতি।

কিছুদিন পরপর চট্টগ্রামের আনোয়ারা-কর্ণফুলীর লোকালয়ে ঘুরপাক খাচ্ছে একাধিক বন্যহাতি। বন্য হাতির আক্রমণে আহত-নিহত ও বসতবাড়ি ভাঙচুর নিত্যদিনের ঘটনা। তবুও হাতি সরিয়ে নেয়ার উদ্যোগ নেই বন্য প্রাণী ও বন বিভাগের। দুই উপজেলা প্রশাসনেরও দায়সারা ভাব-বনবিভাগকে জানিয়েছি। আরো বলা যায়, কোরিয়ান রপ্তানি প্রক্রিয়াকরণ অঞ্চলের (কেইপিজেড) নীরব ভূমিকায় দীর্ঘ হচ্ছে মৃত্যুসারি।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, কর্ণফুলী উপজেলার বড়উঠান, দৌলতপুর, দক্ষিণ শাহমীরপুর এবং আনোয়ারার গুয়াপঞ্চক, বৈরাগ,মোহাম্মদপুর, ফকিরখিল, বটতলী, হাজিগাঁও, গুচ্ছগ্রামে
বিগত বছরগুলোতে তিনশতাধিক পরিবারের বসতঘর ভাঙচুর ও হাতির পায়ে পৃষ্ট হয়ে প্রাণ হারিয়েছে বড়উঠান খিলপাড়া গ্রামে জালাল আহমদ (৭২), ২০১২ সালেও মরিয়ম আশ্রম এলাকায় জুয়েল দাশ নামে এক ছাত্র।

একই বছরের ১৩ জুলাই আনোয়ারা উপজেলার বৈরাগ ইউনিয়নের মোহাম্মদপুর গ্রামের আবদুর রহমান (৭০), ২৬ জুন বটতলী ইউনিয়নের পুরাতন গুচ্ছগ্রামে ডা. ফরিদের বাড়ির মৃত আবু তাহেরের স্ত্রী মোমেনা খাতুন (৬৫), ১৪ জুলাই রাতে আনোয়ারা উপজেলার বৈরাগ ইউনিয়নের হাতির আক্রমণে কান্তিরহাট হলিফাপাড়া এলাকার নেওয়াজ তালুকদার বাড়ির মৃত বদিউজ্জামাল চৌধুরীর পুত্র মো. আকতার হোসেন চৌধুরী (৫০), বরুমছড়া গ্রামের এক মহিলাসহ গত ১৭ আগস্ট রোববার হাতি শুঁড় দিয়ে তুলে উপজেলার তৈলারদ্বীপ এলাকার আলী মাষ্টারের বাড়ির মৃত আবদুল আউয়ালের পুত্র মো. আবদুল মোতালেব বাবুল (৬৮)। সর্বশেষ তথ্যে, কর্ণফুলীতে বন্য হাতির তাণ্ডবে গার্মেন্টস শ্রমিক মো. এনাম (২২) ও সজিব (২০) গুরুত্বর আহত হয়েছেন।

বন্যহাতি-মানুষ সংঘাত নিরসন শীর্ষক জনসচেতনতামূলক এক কর্মশালায় বড়উঠান ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ দিদারুল আলম বলেন, সারাদিন পরিশ্রম করে রান্নাঘরে ভাত খেতে বসলেই হাকডাক আসে ‘হাতি আসিতেছে’। এই হাতির আক্রমণে একে একে নিহত হচ্ছে মানুষ। আমি বন বিভাগকে বলেছি প্রয়োজনে টাকা লাগলে আপনারা টাকা নিয়ে যান। তবুও আমার বড়উঠানের গ্রামবাসীকে হাতীর আক্রমণ থেকে বাঁচান।

পটিয়া বনবিভাগের এক কর্মকর্তা বলেন, হাতি গুলো সরিয়ে নেওয়ার জন্য বন্য প্রাণী বিভাগ চেষ্টা চালাচ্ছে। আমরা প্রতিদিন দেয়াঙ পাহাড়ে গিয়ে হাতি গুলোকে আরও গভীর জঙ্গলে পাঠানোর চেষ্টা করছি।’

চটগ্রাম দক্ষিণ বন বিভাগের বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ কর্মকর্তা মোহাম্মদ খোরশেদ আলম বলেন, হাতিকে আক্রমণ করবেন না। এটা জাতীয় সম্পদ। হাতি দেখলে বনবিভাগকে খবর দেবেন। আমরা যতটুকু সম্ভব নিরসনের ব্যবস্থা করব।

তিনি আরো বলেন, এরপরেও কোন অনাকাঙ্খিত ঘটনায় বন বিভাগের পক্ষ থেকে হাতির আক্রমণে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারকে আর্থিক ক্ষতিপূরণ দেওয়া হবে। এতে ক্ষতিগ্রস্ত কৃষককে ২৫ হাজার, আহত পরিবারকে ৫০ হাজার এবং নিহত ব্যক্তির পরিবারকে ১লক্ষ টাকা ক্ষতিপূরণ দেয়ার কথা বলেন।’

বিপরীতে ইউপি চেয়ারম্যান দিদারুল আলম বলেন, ২০১১ সালে থেকে গ্রামে হাতির উপদ্রব নিয়ে অভিযোগ জানিয়ে আসছি। কিন্তু কার্যকর কোন ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি। আমাদের মাননীয় ভূমিমন্ত্রী আলহাজ্ব সাইফুজ্জামান চৌধুরী জাবেদ হাতির আক্রমণ থেকে গ্রামবাসীকে রক্ষায় ১০ লাখ টাকা অনুদান দেওয়ার কথাও জানিয়েছিলেন। যা আমি পরে বনবিভাগকে অবগত করলাম। কিন্তু এরপরেও কোনো সুফল পাচ্ছি না।’

কেইপিজেডের প্রশাসন ও মানবসম্পদ উন্নয়ন বিভাগের সহকারী ব্যবস্থাপক মঈনুল আহসান জানান, বন্য হাতি দুটি গাছপালা উপড়ে ফেলছে, স্থাপনা ভাঙছে। এখানকার ২৩টি কারখানায় কাজ করেন আনোয়ারা-কর্ণফুলী ও আশপাশের এলাকার প্রায় ২২ হাজার শ্রমিক। সন্ধ্যায় ঘরে ফেরার জন্য বের হতেই তারা হাতি আতংকে ভুগছেন।

আনোয়ারা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) শেখ জোবায়ের আহমেদ বলেন, বন্য হাতির আক্রমণে নিহতের পরিবারদের সরকারিভাবে আর্থিক সহযোগিতার দেওয়া হয়েছে। বিষয়টি বন বিভাগকে জানানো হয়েছে। দ্রুত হাতি গুলো সরিয়ে নেওয়ার ব্যবস্থা নেওয়া হবে। কিন্তু আদৌও কোন কার্যকর ব্যবস্থা এখনো চোখে পড়ছে না বলে স্থানীয়দের দাবি।

কর্ণফুলী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) শাহিনা সুলতানা বলেন, কেইপিজেড এলাকার হাতি তাড়াতে একাধিকবার বন বিভাগকে জানানো হয়েছে। এখনো কোন পদক্ষেপ নিয়েছে বলে জানা যায়নি। হয়তো তাঁদের প্রয়োজনীয় সরঞ্জাম নেই। তবুও প্রশাসন বসে থাকবে না। জেলা মিটিং এ বিষয়টি উপস্থাপন করা হয়েছে।’

উল্লেখ্য, বন্যপ্রাণী ব্যবস্থাপনা ও প্রকৃতি সংরক্ষণ বিভাগের তথ্য অনুযায়ী, ২০১৯ সালের জানুয়ারি থেকে এ বছরের ১৩ নভেম্বর পর্যন্ত মারা গেছে ৪৩টি হাতি। যার মধ্যে ১৬টি চট্টগ্রামে এবং বাকিগুলো বান্দরবান ও কক্সবাজারে। এসব হাতির মধ্যে ১৯টি অসুস্থতাজনিত, পাঁচটি বার্ধক্যজনিত এবং অন্যগুলোর মৃত্যু হয়েছে মানবসৃষ্ট কারণে। এ ছাড়া পানিতে ডুবে কিংবা পাহাড় থেকে পড়েও বেশকিছু হাতির মৃত্যু হয়েছে।

বন বিভাগের হিসাব অনুযায়ী, এ তিন বছরে ৯টি হাতি মারা হয়েছে বৈদ্যুতিক তারের ফাঁদ পেতে। যার মধ্যে চারটি চট্টগ্রামে, একটি বান্দরবানের লামায়, বাকি চারটি হাতি হত্যা করা হয়েছে কক্সবাজারে।

আইইউসিএন জরিপ অনুযায়ী, ২০১৬ সাল পর্যন্ত বাংলাদেশে বন্যহাতির সংখ্যা ছিল ২৬৮টি। এ ছাড়া ব্যক্তিমালিকানাধীন ৮২টি, চিড়িয়াখানায় তিনটি ও দেশের দুটি সাফারি পার্কে ১১টি হাতি রয়েছে। এর সঙ্গে বিভিন্ন সময়ে কিছু হাতির প্রজনন হয়েছে বলে মনে করেন বন বিভাগের কর্মকর্তারা। এমন প্রেক্ষাপটে সমকালসহ বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদনের তথ্য উল্লেখ করে হাতির করিডোর রক্ষায় হাইকোর্টে এ রিটটি করা হয়।

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

সর্বশেষ

Welcome Back!

Login to your account below

Create New Account!

Fill the forms bellow to register

Retrieve your password

Please enter your username or email address to reset your password.

Add New Playlist