গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয় কর্তৃক নিবন্ধিত। নিবন্ধন নং – ৬০
Thursday, 13 June 2024

মুক্তিযোদ্ধারা জীবন বাজি রেখে এই বাংলাদেশ দিয়ে গেছেন আমাদেরকে: শিক্ষামন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক

শিক্ষামন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল এমপি বলেছেন, মুক্তিযোদ্ধারা জীবন বাজি রেখে এই বাংলাদেশ দিয়ে গেছেন আমাদেরকে। মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতি সম্মান দেখিয়ে তাদের যে পরবর্তী প্রজন্ম, যারা সেই মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে ধারণ করেন বলে আমরা ধারণা করে থাকি- সেই মুক্তিযোদ্ধাদের সন্তানদের জন্য রাষ্ট্র কর্তৃক কোটার বিষয়টা ছিল। মুক্তিযোদ্ধার সন্তানদের কোটার প্রশ্নে কিছু মানুষের উষ্মা খুবই দুঃখজনক বলে মন্তব্য করেন তিনি।

শনিবার দুপুরে চট্টগ্রামের এমএ আজিজ স্টেডিয়াম সংলগ্ন জিমনেসিয়াম হলে জেলা প্রশাসন আয়োজিত ভূমিসেবা সপ্তাহের উদ্বোধনী অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ মন্তব্য করেন।

ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল ‘বাংলাদেশ বিরোধী, মুক্তিযুদ্ধবিরোধী শক্তি অতীতে দীর্ঘদিন ধরে সরকারের আনুকূল্য পেয়ে ফুলে ফেঁপে একটা পর্যায়ে পৌঁছেছে। সেই গোষ্ঠীগুলো যে একটা পর্যায়ে অনেক বড় হয়নি, এটা তো বলা যেতে পারে না। তারা রাজনীতিতে বিদ্যমান, সমাজে বিদ্যমান এবং অর্থনীতিতে খুবই শক্তিশালী ভূমিকা রাখছে। এই শক্তিটা মুক্তিযুদ্ধের চেতনার বিরোধিতা অবশ্যই করবে। মুক্তিযোদ্ধার সন্তানদের কোটার বিষয়টি অনেক জায়গায় সেটাকে মান্য করা হচ্ছে না। সে বিষয়ে উচ্চ আদালত থেকে একটা নির্দেশনা এসেছে। আমরা সকলকে অনুরোধ জানাব, উচ্চ আদালতের রায়ের প্রতি এবং নির্দেশনার প্রতি সবাই যথাযথভাবে সম্মান দেখাবেন।

আদেশটি এখনো হাতে না আসায় সুনির্দিষ্ট মন্তব্য করছেন না জানিয়ে তিনি বলেন, মুক্তিযুদ্ধের এত বছর পর এসে মুক্তিযোদ্ধাদের সন্তানদের কোটার প্রশ্নে কিছু মানুষের যে এত উষ্মা- এটা আসলে আমাদের জন্য খুবই দুঃখজনক।

“আমাদের দেশ যারা স্বাধীন করে দিয়ে গেছেন, তাদের ক্ষেত্রে এটা দ্বিতীয়বার যদি প্রশ্নবিদ্ধ হয় কোনো আলোচনার মাধ্যমে, সেটা কাম্য নয়।”

অন্য এক প্রশ্নে নওফেল বলেন, এখনও কিছু রাজনৈতিক দল বলছে যে, পাকিস্তানের সময় নাকি ভালো ছিল। বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলছেন, পাকিস্তানের সময় নাকি পরিস্থিতি ভালো ছিল। কতটুকু পাকিস্তান প্রেম একটি দলের মহাসচিবের থাকতে পারে সেটা আপনারা দেখতে পাচ্ছেন। এমন একটা পরিস্থিতিতে আমরা আছি।

পৃথিবীর অন্য কোনো দেশে স্বাধীনতার এত বছর পরেও ‘স্বাধীনতাবিরোধী’ শক্তি এভাবে আছে কিনা জানা নেই বলেও মন্তব্য করেন নওফেল।

এই গোষ্ঠী শিক্ষা ব্যবস্থা থেকে ধর্মনিরপেক্ষ অসাম্প্রদায়িক চেতনাকে বিচ্যুত করে এক ধরনের সাম্প্রদায়িকীকরণের চেষ্টা করে বলেও মন্তব্য করেন শিক্ষামন্ত্রী। বলেন, “আমরা সব সময় বলে এসেছি, শিক্ষা ব্যবস্থা ও পাঠ্যক্রমের মধ্যে সব ধর্মের প্রতি সম্মান ও শ্রদ্ধার জায়গাটাতে থাকব।”

কর্ণফুলী নদীর চর বাকলিয়ায় চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের যে বর্জ্য শোধনাগার করতে চাইছে, সে বিষয়ে এক প্রশ্নে চট্টগ্রাম-৯ আসনের সংসদ সদস্য নওফেল বলেন,‘‘পরিবেশের ক্ষতি হবে, সে রকম কোনো কাজ যাতে আমরা না করি।

‘‘কেউ যদি পরিকল্পনা করে থাকে, নদীর মধ্যবর্তী জায়গায় বর্জ্য ব্যবস্থাপনা করা হবে সেটা কখনোই নদীর জন্য ভালো ফল বয়ে আনতে পারে বলে আমি মনে করি না।”

এই বিষয়টি নিয়ে পরিবেশ মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে কথা বলবেন জানিয়ে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘‘আমি পরিবেশের সঙ্গে কথা বলব। সারা বাংলাদেশের মানুষের দৃষ্টি থাকে কর্ণফুলী নদীর উপরে। সেই কর্ণফুলী নদীর মাঝখানে চরে বর্জ্য ফেলা হবে, বর্জ্য থেকে কী করা হবে, সেটা পরিবেশের জন্য কতটা গ্রহণযোগ্য হবে, সেটা ভেবে দেখার প্রয়োজন আছে। তবে আমার মনে হয় না, এটা পরিবেশের দিক থেকে কখনই যথাযথ হতে পারে না।

‘‘বিশেষ করে নদীর ব্যবস্থাপনা ও নদীর পানির বিশুদ্ধতা, সেটা দূষণমুক্ত রাখা এবং নদী চলাচলের উপযুক্ত রাখা, সে বিষয়ে শুধু নির্বাহী বিভাগ নয়, বিচার বিভাগ থেকেও সুনির্দিষ্ট নির্দেশনা আছে। নদীকে রক্ষা করতে হবে। নদীর প্রাণ আছে সেভাবে করেই আমাদের সমাজ ও সংস্কৃতিতে আমরা নদীকে সম্মান করি।”

চট্টগ্রাম অঞ্চলে নতুন সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের স্থান নির্ধারণের বিষয়ে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘‘দক্ষিণ চট্টগ্রাম, কক্সবাজার ও বান্দরবান মিলিয়ে কোনো পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় নেই। সেখানে বিশ্ববিদ্যালয় দেওয়ার জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নীতিগত সম্মতির জন্য আমরা প্রস্তাবনা পাঠিয়েছি।

‘‘কক্সবাজারে মূলত সেই বিশ্ববিদ্যালয় যাতে হয়। তাহলে আমাদের কক্সবাজার জেলা, বান্দরবান এবং দক্ষিণ চট্টগ্রাম থেকে শিক্ষার্থীরা আসতে পারবে। সেভাবে করে জায়গাটা নির্ধারণ করা হবে। তবে বিশ্ববিদ্যালয়টি হবে কক্সবাজারে।”

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সুযোগ্য কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার বদান্যতায় ও নির্দেশনায় ডিজিটাল বাংলাদেশ সৃষ্টি হয়েছে। সেই ডিজিটাল বাংলাদেশের একটি অন্যতম প্রাপ্তি হচ্ছে ভূমি ব্যবস্থাপনায় ডিজিটালাইজেশন। দীর্ঘ প্রক্রিয়া ও সংশ্লিষ্ট সকলের সাথে আলোচনা করে ল্যান্ড রেকর্ডকে ধীরে ধীরে ডিজিটালাইজেশনের একটি পর্যায়ে নিয়ে আসা হয়েছে। পাশাপাািশ ভূমি ব্যবস্থাপনা সহজীকরণের জন্য সরকার একটি সময়োপযোগী উদ্যোগ নিয়েছে। যাদের ভূমি আছে বা ভূমি ক্রয়-বিক্রয় করলে ভূমির নিবন্ধনের পাশাপাশি বিদ্যমান দখলে কে আছে, ভূমি কর কে দেবে এসব বিষয়গুলো সহজ করার জন্য ভূমি মন্ত্রণালয়ের নিয়ম-নীতি অনুযায়ী যে উদ্যোগ সে উদ্যোগগুলো অনুসরণপূর্বব জেলা প্রশাসন সে দায়িত্বটুকু পালন করে। ডিজিটাল ভূমি ব্যবস্থাপনার কারণে আমরা এখন ভূমি অফিসে না গিয়ে ঘরে বসেই মোবাইলের মাধ্যমে অনলাইনে খাজনা প্রদান, ই-নামজারীর আবেদন ও ভূমির অবস্থানসহ ভূমি সংক্রান্তে সকল ধরণের সেবা গ্রহণ করছি।

শুরুতে বেলুন উড়িয়ে ও ফিতা কেটে সপ্তাহব্যাপী ভূমিসেবা সপ্তাহের উদ্বোধন ও শেষে মেলার স্টল পরিদর্শন করেন মন্ত্রী। ভূমি সেবা সপ্তাহের এবারের মূল প্রতিপাদ্য বিষয় হচ্ছে-“স্মার্ট ভূমিসেবা,স্মার্ট নাগরিক”। আগামী ১৪ জুন শুক্রবার ভূমিসেবা সপ্তাহ সম্পন্ন হবে। ভূমি সেবা সপ্তাহ উদযাপন উপলক্ষে স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীদের মধ্যে কুইজ ও বিতর্ক প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়েছে।

মন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে আগামী ২০৪১ সালে স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণে আমরা কাজ করে যাচ্ছি। স্মার্ট পদ্ধতিতে ভূমি সংক্রান্ত সকল সেবা দুর্নীতি ও হয়রানিমুক্তভাবে জনসাধারণের দোর গোড়ায় পৌঁছে দেয়া স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণের একটি অন্যতম ক্ষেত্র। নাগরিকগণ ভূমি অফিসে না গিয়ে ঘরে বসেই মোবাইলের মাধ্যমে ভূমি উন্নয়ন কর পরিশোধসহ সকল ধরণের খতিয়ান বা পর্চা সম্পর্কে জানতে পারছে। ভূমি মন্ত্রণালয় ইতোমধ্যে ভূমি সংক্রান্ত সেবাসমূহ অটোমেশনের মাধ্যমে জনগণের নিকট পৌঁছানোর লক্ষ্যে নানাবিধ কার্যক্রম গ্রহণ করেছে। এ সকল কার্যক্রম সর্বসাধারণের মাঝে ব্যাপক আকারে প্রচার প্রচারণা লক্ষ্যে দেশব্যাপী ভূমিসেবা সপ্তাহের আয়োজন।

তিনি আরও বলেন, ভূমি ব্যবস্থাপনার জন্য শুধু আইনজীবি নয়, পেশাজীবিও প্রয়োজন। দক্ষ, স্বচ্ছ ও জনবান্ধব ভূমিসেবা প্রতিষ্ঠা করা এবং ভূমি সেবা সম্পর্কে অবহিতকরণের ম্যাধ্যমে স্মার্ট নাগরিক গড়ে তোলার জন্য সরকার উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। পিতা-মাতা ও পরিবার পরিজন নিয়ে নিজেদেরকে নিরাপদভাবে থাকার জন্য বর্তমান বর্তমান প্রজন্মের শিক্ষার্থীদেরকে ভূমি ব্যবস্থাপনা বিষয়ে জ্ঞান অর্জনের আহবান জানান শিক্ষা মন্ত্রী।

চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক আবুল বাসার মোহাম্মদ ফখরুজ্জামানের সভাপতিত্বে ও সিনিয়র সহকারী কমিশনার রাজীব হোসেনের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সপ্তাহব্যাপী ভূমিসেবা সপ্তাহের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন বিভাগীয় কমিশনার মোঃ তোফায়েল ইসলাম, সিএমপি কমিশনার কৃষ্ণ পদ রায়, অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার (রাজস্ব) ইয়াছমিন পারভীন তিবরীজি, পুলিশের চট্টগ্রাম রেঞ্জের অতিরিক্ত ডিআইজি সঞ্জয় সরকার, জেলা পুলিশে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন ও অর্থ) কবির আহমেদ, মহানগর মুক্তিযোদ্ধা সংসদের ডেপুটি কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা শহীদুল ঘশ চৌধুরী সৈয়দ ও জেলা সংসদের ভারপ্রাপ্ত কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা একেএম সরোয়ার কামাল। স্বাগত বক্তব্য রাখেন চান্দগাঁও সার্কেলের সহকারী কমিশনার (ভূমি) ইউসুফ হাসান। অনুষ্ঠানে বিভাগীয় ও জেলা প্রশাসনের পদস্থ কর্মকর্তা ও কর্মচারীগণ উপস্থিত ছিলেন।

সরকারের ভূমি মন্ত্রণালয় কর্তৃক গৃহীত বিভিন্ন কার্যক্রম সম্পর্কে সাধারণ নাগরিকের সচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে আজ ৮ জুন শনিবার থেকে ১৪ জুন শুক্রবার পর্যন্ত সারা বাংলাদেশে ভূমিসেবা সপ্তাহ উদযাপন করা হচ্ছে।

এরই ধারাবাহিকতায় চট্টগ্রাম জেলাসহ বিভাগের ১১টি জেলার ১০৩টি উপজেলা ভূমি অফিস, সার্কেল ভূমি অফিস ও সকল ইউনিয়ন ভূমি অফিসে ভূমি সেবা সপ্তাহ-২০২৪ উদযাপিত হচ্ছে। আগামী ১২ জুন বুধবার এম এ আজিজ স্টেডিয়াম সংলগ্ন জিমনেসিয়াম হলে ভূমিসেবা সপ্তাহ সংক্রান্ত জনসচেতনতামূলক সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন ভূমি মন্ত্রী নারায়ণ চন্দ্র চন্দ।

চট্টগ্রামে ভূমিসেবা সপ্তাহে ১০টি স্টলের মাধ্যমে আগত সেবা প্রার্থীদের সেবা প্রদান করা হবে। ১০টি স্টলের মধ্যে ৬টি স্টলে মহানগরের ৬টি সার্কেল ভূমি অফিসের ভূমি বিষয়ক যাবতীয় সেবা প্রদান, ১টি স্টলের মাধ্যমে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের এলএ শাখা কর্তৃক সংশ্লিষ্ট বিষয়ে সেবা প্রদান, ১টি স্টলের মাধ্যমে রেকর্ডরুমের খতিয়ান সরবরাহ সংক্রান্ত সেবা প্রদান করা হচ্ছে, ১টি স্টলে জোনাল সেটেলমেন্ট অফিস এবং অপর ১টি স্টলে জেলা রেজিস্টার অফিস কর্তৃক আগত সেবা প্রার্থীদের বিভিন্ন প্রকার ভূমি বিষয়ক সেবা প্রদান করা হচ্ছে।

এছাড়াও মহানগরের ৬টি সার্কেল ভূমি অফিসসহ সকল উপজেলা ভূমি অফিসে পৃথক স্টল স্থাপনের মাধ্যমে ভূমিসেবা প্রদান করছে। স্টলে ভূমিসেবা সংক্রান্তে আরও অন্যান্য সেবা প্রদান করা হবে। এগুলো হচ্ছে-অনলাইনে ভূমি উন্নয়ন কর প্রদানের জন্য রেজিস্ট্রেশন সংক্রান্ত কার্যক্রম, বর্তমান ভূমি উন্নয়ন কর সম্পূর্ণভাবে অনলাইনে গ্রহণ করণ বিষয়ে তথ্য প্রদান, অনলাইনে ভূমি উন্নয়ন কর গ্রহণ করা, ই-নামজরির আবেদন গ্রহণ করা, নিষ্পত্তিকৃত এল এ কেইসের ক্ষতিপূরণের চেক বিতরণ, অনলাইনে খতিয়ানের সার্টিফাইড কপি প্রাপ্তির আবেদন গ্রহণ এবং তাৎক্ষণিকভাবে তা সরবরাহ করা, অনলাইনের মৌজা ম্যাপ ডাক বিভাগের মাধ্যমে সরবরাহ করণের বিষয়ে তথ্য প্রদান, মাঠ পর্যায়ে চলমান জরিপ কার্যক্রম বিষয়ে গণশুনানি, আপত্তি/আপিল দাখিল ও নিষ্পত্তির কার্যক্রম গ্রহণ।

এছাড়া মাঠ পর্চা, রেকর্ড হস্তান্তরসহ জনগণকে সকল সেবা প্রদান করা হচ্ছে ও সেবা গ্রহীতাদের সেবা সম্পর্কিত বিভিন্ন জিজ্ঞাসার জবাব সরাসরি উত্তর প্রদানের জন্য সেবা বুথে একজন কর্মকর্তা নিয়োজিত রয়েছে। এছাড়া ভূমি সংক্রান্ত যে কোন সেবা সম্পর্কে জানতে ও পেতে ১৬১২২ এ হটলাইন নম্বরে অবহিত করা যাবে।

সর্বশেষ

স্ত্রী হত্যার দায়ে স্বামীর যাবজ্জীবন দণ্ড

চট্টগ্রামের মিরসরাই উপজেলার জোরারগঞ্জ থানায় দায়ের হওয়া গৃহবধূ হত্যা...

সড়কে অকাল মৃত্যু কামনা করি না: চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক

চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক (ডিসি) ও জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আবুল বাসার...

সড়কে অকাল মৃত্যু কামনা করি না: চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক

চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক (ডিসি) ও জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আবুল বাসার...

জমে উঠেছে কোরবানির হাট; আসছে বাহারি নামের পশু

কোরবানির ঈদের বাকি ৩ দিন । এর মধ্যে জমে...

চাকরি নিশ্চিত হওয়ার পরই বাংলাদেশিদের ভিসা দেবে আমিরাত: প্রধানমন্ত্রীকে রাষ্ট্রদূত

বাংলাদেশি শ্রমিকদের চাকরি নিশ্চিত হওয়ার পরই কেবল ভিসা ইস্যু...

প্রধানমন্ত্রীর ঈদ উপহার পেয়ে যা বললো হাসিমাখা মুখগুলো

১৭জুন ঈদ। এর আগেই চলতি সপ্তাহে আশ্রয়ণ প্রকল্প-২-এর আওতায়...

আরও পড়ুন

স্ত্রী হত্যার দায়ে স্বামীর যাবজ্জীবন দণ্ড

চট্টগ্রামের মিরসরাই উপজেলার জোরারগঞ্জ থানায় দায়ের হওয়া গৃহবধূ হত্যা মামলায় মো. সাইফুল ইসলামকে যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছে আদালত।বৃহস্পতিবার (১৩ জুন) চট্টগ্রামের দ্বিতীয় অতিরিক্ত জেলা...

সড়কে অকাল মৃত্যু কামনা করি না: চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক

চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক (ডিসি) ও জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আবুল বাসার মোহাম্মদ ফখরুজ্জামান বলেছেন, গত ২২ এপ্রিল বিকেলে রাঙ্গুনিয়া থানাধীন সত্য পীরের মাজার সংলগ্ন সড়কে বাসের...

সড়কে অকাল মৃত্যু কামনা করি না: চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক

চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক (ডিসি) ও জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আবুল বাসার মোহাম্মদ ফখরুজ্জামান বলেছেন, গত ২২ এপ্রিল বিকেলে রাঙ্গুনিয়া থানাধীন সত্য পীরের মাজার সংলগ্ন সড়কে বাসের...

জমে উঠেছে কোরবানির হাট; আসছে বাহারি নামের পশু

কোরবানির ঈদের বাকি ৩ দিন । এর মধ্যে জমে উঠতে শুরু করেছে চট্টগ্রামের আনোয়ারা উপজেলার স্থায়ী ও অস্থায়ী পশুর হাট গুলো। কোরবানির ঈদ উপলক্ষে...