গার্মেন্টসে বাড়তি অর্ডার কই!

0
শেয়ার
28
দেখেছে

সৈয়দ নুরুল ইসলাম: অনেকে বলছেন বাংলাদেশে নাকি এখন প্রচুর গার্মেন্টসের অর্ডার। কারখানার মালিকরা নাকি পাগল হয়ে গেছে বায়ারদের অর্ডার নিয়ে ছুটা ছুটি দেখে। ইন্ডিয়া থেকে অর্ডার, মায়ানমার থেকে অর্ডার, ভিয়েতনাম থেকে অর্ডার, অর্ডার ও অর্ডারে দেশ ভরে যাচ্ছে! একজন টেক্সটাইল ও এ্যাপারেল ব্যবসায়ী হিসাবে কাজ করছি ৩০ বছরের উপর। আমার মাথায় কিছু আসেনা। বাড়তি অর্ডার কই।আমি তো কোথাও বাড়তি অর্ডার দেখিনা।

২০১৭-২০১৯ দুই বছর ছিল আমাদের জন্য অগ্নি পরীক্ষা। একর্ড এ্যালাইন্সের চাপে কোটি কেটি টাকা খরচ করে আমাদের কারখানাগুলোকে নতুন করে সাজাতে হল। ৯০% কারখানা একর্ড এ্যালাইন্সের শর্ত মেনে কারখানাগুলোর নিরাপত্তা ও কর্মপরিবেশ নিশ্চিত করে যখন ২০২০ সাল থেকে নতুন করে শুরু করার স্বপ্ন নিয়ে যাত্রা শুরু করল তখনি করোনা মহামারীর আঘাত।

২০১৮-১৯ অর্থ বছরে আমাদের রপ্তানি ছিল ৩৪+ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। সেখান থেকে করোনার আঘাতে ২০১৯-২০ আমাদের রপ্তানি নেমে গেল ২৮+ বিলিয়ন মার্কিন ডলারে। সরকারের সহায়তা ও গার্মেন্টস কারখানা মালিক, শ্রমিক ও কর্মচারীদের সাহসী ও পরিশ্রমের কারণে আমাদের গার্মেন্ট শিল্প ঘুরে দাঁড়াতে শুরু করে রপ্তানি আয় ২৮ + বিলিয়ন মার্কিন ডলার থেকে বেড়ে ২০২০-২১ অর্থ বছরে ৩১+ বিলিয়ন মার্কিন ডলারে দাঁড়িয়েছে।

২০১৮-১৯ এ ছিল ৩৪+ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। আর এখন ৩১+ বিলিয়ন। তাহলে কি হল? ২০১৮-১৯ আমরা যেখানে ২০২১ সালের মধ্যে ৫০ বিলিয়ন মার্কিন ডলার রপ্তানির স্বপ্ন দেখছিলাম সেখানে আমাদের রপ্তানি ৩১+ বিলিয়ন। ২০২১-২২ সালের শুরুতে আবার নতুন করে করোনার হানা। এভাবে চললে ২০২১-২২ সালের শেষে আমাদের গার্মেন্ট রপ্তানি হতে পারে সর্বোচ্চ ৩৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। কিন্তু আমাদের ক্যাপাসিটি ৫০ বিলিয়ন মার্কিন ডলার।ক্যাপাসিটি কস্ট বলে একটা কথা আছে। সেটা কোত্তেকে আসবে বা পুরন হবে? তারপরও যারা বলছেন বাংলাদেশের গার্মেন্টস শিল্পের সুদিন ফিরে এসেছে তাদের কাছে জানতে চাই আপনাদের এই তথ্যের সুত্র কি?

লেখক : ভাইস চেয়ারম্যান ও সিইও ওয়েল গ্রুপ।

আরো নিউজ

পরের সংবাদ

আপনার গুরুত্বপূর্ণ মতামত দিন, আপনার মতামত আমাদের পথ চলার পাথেয়

সর্বশেষ সংবাদ

আর্কাইভ