আজ সোমবার, ১ জুন ২০২০ ইং

ধৈর্য ধরুন, এখনও বিপদ কাটেনি

চট্টগ্রাম নিউজ ডটকম ।    |    ১১:৫১ পিএম, ২০২০-০৪-৩০



ধৈর্য ধরুন, এখনও বিপদ কাটেনি

বিশ্বব্যাপী ভয়াবহ করোনাভাইরাস দুর্যোগে উন্নত, উন্নয়নশীল বা অনুন্নত সব দেশই হাবুডুবু এবং সংক্রমণ প্রতিরোধে হিমশিম খাচ্ছে। করোনাভাইরাসে ব্যবসা-বাণিজ্য, বিমান যোগাযোগ, শিক্ষা কার্যক্রম এবং স্বাভাবিক জীবন এক ধরনের থমকে আছে। করোনাভাইরাস সংক্রমণের ঝুঁকি থেকে মানবজাতিকে রক্ষার জন্য চিকিৎসা বিজ্ঞানীরা রাত-দিন ভ্যাকসিন আবিস্কারের চেষ্টা করে যাচ্ছে। আর বাংলাদেশে এক অসাধু ব্যবসায়ীরা ও কিছ রাজনৈতিক নেতারা মানুষের জীবন নিয়ে ছিনিমিনি খেলছে।

বিশ্ব নেতারা ভাবছেন, কিভাবে মৃত্যের মিছিল থেকে লাশের সংখ্যা কমানো যায় এবং অর্থনৈতিক চাকা সচল রাখা যায়। এছাড়াও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী যেভাবে কাজ করে যাচ্ছেন, তা অবশ্যই প্রশংসার দাবিদার। আর এরা চিন্তা করে কিভাবে অসৎ উপায়ে অধিক মুনাফা করা যায়। এরা সমাজ বা দেশের জন্য ক্ষতিকর। এদেরকে নিন্দা করার ভাষা নেই। চিকিৎসক, নার্স এবং অন্যান্য স্বাস্থ্যকর্মীরা ব্যক্তিগত সুরক্ষা সরঞ্জাম এর ঘাটতি নিয়ে কাজ করে যাচ্ছে। আর মাস্ক ও ত্রাণ চোরের কার্যক্রম জাতিকে বিব্রত করছে। তাই এদেরকে মানুষ নামে পরিচয় না দেওয়াই ভাল।

বিভিন্ন হাসপাতালের চিকিৎসক ও নার্সদের ব্যবহারের জন্য নকল মাস্ক সরবরাহ করছে এক ব্যবসায় প্রতিষ্ঠান। যেখানে দেওয়ার কথা ছিল এন-৯৫, দিয়েছে  নিম্নমানের কাপড়ের মাস্ক। এটা কি ভাবা যায় ? এই সময়ে মানুষ কি এটা করতে পারে? কতটুকু মনুষ্যত্বহীন হলে এ কাজ করতে পারে। গণমাধ্যমে প্রকাশিত এই ব্যবসায়ীদের সাথে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের কারো কারো সাথে যোগসাজশ আছে বলে অভিযোগ রয়েছে। হাসপাতালের চিকিৎসকসহ পুরোজাতি আজ বিব্রতকর পরিস্থিতি ও ঝুঁকির মধ্যে পড়েছে। এগুলো ব্যবহার করে রোগীদের সংস্পর্শে যাওয়া মানে শুধু বিপদ না বরং করোনাভাইরাস সংক্রমণের ঝুঁকি বেড়ে যাওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। চিকিৎসকরাও মরবে, আমাদেরকে মরতে হবে এসব নীতিহীন  মানুষের কারণে।  

এমন ঘটনা সম্পর্কে কেউ প্রতিবাদ করারও সাহস পাচ্ছে না। চিকিৎসকদের মতে, এমন ঘটনা পূর্বেও একটি হাসপাতালে ঘটেছিল এবং হাসপাতালের প্রধান প্রতিবাদ করলে তাকে বদলি করে দেওয়া হয়। এ জন্য চিকিৎসকরা কোনো প্রতিবাদ করতে পারছেন না। চিকিৎসক-নার্সদের করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার জন্য এটি অন্যতম কারণ বলে মনে করছি। নিম্নমানের মাস্ক ও পিপিই ব্যবহার করে করোনাভাইরাসের রোগীর চিকিৎসায় আইসোলেশন ওয়ার্ড, আইসিইউ ও ল্যাবরেটরিতে যাওয়া সম্ভব নয়। এক্ষেত্রে তাদের মারাত্মক স্বাস্থ্য ঝুঁকি থাকে।

গণমাধ্যম মারফত জানতে পারি স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের কর্তৃপক্ষ বলেন, ভুলবশত জেএমআই গ্রুপ নামের প্রতিষ্ঠানটি ‘এন-৯৫’এর প্যাকেটে নিম্নমানের মাস্ক দিয়েছে। এজন্য কেন্দ্রীয় ঔষধাগারের পক্ষ থেকে ওই প্রতিষ্ঠানকে কারণ দর্শানোর নোটিশ পাঠানো হয়েছে। এটা কোন সমাধান নয়। তড়িৎ আইনি পদক্ষেপ গ্রহণ করা উচিত ছিল। আর মালামাল ডেলিভারি দেওয়ার পূর্বে কর্তৃপক্ষ কর্তৃক পরিদর্শন করা প্রয়োজন ছিল। তাই এসব অতি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলোর এধরনের অবহেলা কোনভাবে কাম্য নয়।

জানা গেছে, দেশের বিভিন্ন হাসপাতাল থেকে ওই মাস্কের মান নিয়ে লিখিতভাবে সিএমএসডিকে (কেন্দ্রীয় ঔষধাগার) বিষয়টি জানিয়েছিল। কিন্তু তাতে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ও স্বাস্থ্য অধিদপ্তর কর্ণপাত করেনি। অবশেষে গোয়েন্দা রিপোর্টে এর সত্যতা পাওয়া গেছে। প্রথম দিকে ২০০ থেকে ২৫০ পিস প্রকৃত ‘এন-৯৫’ মাস্ক সরবরাহ করেছিল ওই প্রতিষ্ঠানটি। পরে দেশে তৈরি নিম্নমানের মাস্ক ‘এন-৯৫’ এর প্যাকেটে সরবরাহ করে। এর মানে একটু ভালো দেখিয়ে, পরে সর্বনাশ করছে। সরকারকে বেকায়দায় ফেলার জন্য পরিকল্পিতভাবে এই প্রতিষ্ঠান নিম্নমানের মাস্ক চিকিৎসক, নার্স ও স্বাস্থ্যসেবাকর্মীদের মধ্যে সরবরাহ করেছে কিনা, এটা খতিয়ে দেখা দরকার। তা এখন অনেকেরই মনে প্রশ্ন। এর মাধ্যমে দেশের চিকিৎসকদের নিশ্চিত মৃত্যুঝুঁকির দিকে ঠেলে দিয়েছে তারা।

ঝুঁকির মুখে আজ দেশের স্বাস্থ্যসেবা, বিপন্ন হয়ে পড়েছে সরাসরি স্বাস্থ্যসেবা প্রদানকারী চিকিৎসক ও নার্সদের জীবন। অতিদ্রুত উল্লেখিত ব্যক্তিবর্গের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া না হলে সামনে আরো বড়ো ধরনের বিপদ হতে পারে, তাই জনগুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে আপস করার কোনো সুযোগ নেই; স্বাস্থ্য খাতকে বাঁচাতে হলে এদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করতেই হবে। এসবের মুলে রয়েছে, যেখানে যে যোগ্যতার লোক বসার কথা ছিল, সেখানে দেখা গেছে এর চেয়ে কম যোগ্যতাসম্পন্ন লোক নিয়োগ পেয়েছে। এসব লোক দিয়ে করোনার মত এসব মহামারি সামাল দেওয়া একটু কঠিন। এদের কারণে আজ স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষের এতসব অব্যবস্থাপনা সাধারণ মানুষের চোখে ধরা পড়ছে।

এছাড়াও অন্য অসাধু ব্যবসায়ীরা মানহীন মাস্কসহ অন্যান্য ব্যক্তিগত সুরক্ষা সরঞ্জামদি ফুটপাত, রাস্তাঘাট ও অনলাইনে বিক্রি করছে। বর্তমান পরিস্থিতিতে পিপিই সংকটে একাধিক সংঘবদ্ধ চক্র দেশে নকল এন-৯৫ মাস্ক, টেস্ট কিট, গাউন, গ্লাভসসহ করোনাভাইরাসের নানা সুরক্ষা সামগ্রী তৈরি করতে শুরু করছে। পুরান ঢাকার অলিগলিতে তৈরি হচ্ছে এসব নকল পণ্য। আবার কেউ কেউ বিদেশ থেকে মানহীন পণ্য এনে অভিজাত ব্র্যান্ডের মোড়কে বাজারজাত করে বেশি দামে বিক্রি করছে এসব নকল পণ্য। তা আমরা সাধারণ নাগরিকরা টাকা দিয়ে ঝুঁকি থেকে রক্ষার জন্য এসব পণ্য কিনে থাকি। এগুলো ঝুঁকি তো কমায় না, বরং আরও আমাদের স্বাস্থ্য ঝুঁকি অনেকগুণ বাড়িয়ে দিচ্ছে বলে মনে করছে বিশেষজ্ঞরা। এমনকি এসব কোম্পানির পিপিই উৎপাদন করার অফিসিয়াল অনুমোদনও নেই। বিক্রি করার সময় সামাজিক দূরত্ব মেনে চলছে না তারা।

চিকিৎসক, নার্স, টেকনোলজিস্ট, স্বাস্থ্যকর্মী, প্রশাসনিক কর্মকর্তা ও কর্মচারী, ব্যাংক কর্মকর্তা ,পুলিশ ও সেনাবাহিনীসহ অন্যান্য আইন শৃঙ্খলা বাহিনী করোনাভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধে যেভাবে কাজ করে যাচ্ছেন, তা খুবই প্রশংসানীয়। আর অন্যদিকে এই  আসাধু ব্যবসায়ীরা দেশের সাধারণ মানুষের জীবন নিয়ে মজা করছে। তাই ত্রাণ চোরসহ সকল অসাধু ব্যবসায়ীদেরকে তদন্ত সাপেক্ষে দ্রুত আইনের আওতায় আনা উচিত। রাজনীতিবিদরা একে অন্যকে সমালোচনা করে যাচ্ছে। যা এসময়ে কাম্য নয়। কিভাবে জাতি এই মহামারি থেকে রক্ষা পাব তাই এখন মুখ্য বিষয়।  

ইদানিং দেশে করোনাভাইরাস আক্রান্তদের মধ্যে মানবিক ও সামাজিক সংকট প্রতীয়মান হয়েছে। আক্রান্তদেরকে সুরক্ষা না দিতে পারলে সংক্রমণের সংখ্যা আরও বৃদ্ধি পেতে পারে। সবাইকে সহযোগিতা করতে হবে এই দুর্যোগের সময়ে। তাই সবাইকে ধৈর্য ধরতে হবে, করোনাভাইরাস সংক্রমণের ঝুঁকি থেকে মুক্তির জন্য সচেতন হতে হবে এবং নিয়মকানুন মেনে চলতে হবে। একে অপরের দোষ না খুঁজে ঐক্যবদ্ধ হয়ে ভাইরাস পরিস্থিতি মোকাবেলা করতে হবে। কারও কারও আচরণ দেখে মনে হচ্ছে, বিপদ কেটে গেছে- করোনাভাইরাস আর ছোঁবে না। ঢিল দিয়েছেন তারা সতর্কতায়। সংক্রমণ পশ্চিমাবিশ্বের মতো এ দেশে এখনও অত ভয়াবহ না হলেও বিপদ কাটেনি।  

বর্তমানে পৃথিবী এক মহা যুদ্ধ অতিক্রম করছে। যার পরিণাম হবে ভয়াবহ। যেখানে মানুষ মানুষের জন্য কাজ করবে, মানবিক হবে একে অন্যর বিপদে। সেখানে এই ধান্দাবাজরা কী করে যাচ্ছে! কেউ ত্রাণ চুরি করছে, কেউ ভবিষ্যতে অধিক মুনাফার লোভে সরকারি তেল বা চাল মজুদ করছে। তা খুবই দুঃখজনক। তাই এই যুদ্ধক্ষেত্রে আমাদের এসব কাজ কোনভাবে কাম্য নয়, এদেরকে চরম শাস্তি দিতে হবে যাতে ভবিষ্যতে আর কেউ এরকম সাহস না করতে পারে।

করোনাভাইরাসের কারণে এই লকডাউনে যেখানে মানুষ খাবার পাচ্ছে না, দেশের মানুষ রয়েছে এক মহা সংকটে।এই সংকটে দিনমজুর ও গরিবদের খাবার সহায়তা দিচ্ছে সরকার, সেই ত্রাণ বণ্টনের দায়িত্ব পেয়েছেন স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও রাজনেতিক নেতারা। অনেকেই যদিও চাল চুরি করার অপরাধে দল ও সংশ্লিষ্ট পদ থেকে আজীবন বহিষ্কার হয়েছে। অন্যদিকে চাল-চোরদের পক্ষও নিয়েছেন কেউ কেউ। এটা আরও লজ্জাকর বিষয়। যদিও দুর্নীতি দমন কমিশন এদের বিরুদ্ধে তদন্ত শুরু করছে, তা অবশ্যই ভাল খবর। ভবিষ্যতে মাস্ক এবং ত্রাণ চোরেরা এই ধরনের অন্যায় কাজ করা থেকে বিরত থাকবে বলে মনে করি। সুত্র বিডিনিউজ টোয়েন্টি ফোর ডটকম

মো. শফিকুল ইসলামপিএইচডি ফেলো, জংনান ইউনির্ভাসিটি অব ইকোনমিকস অ্যান্ড ল, উহান, চীন।  শিক্ষক, জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়।

 

রিলেটেড নিউজ

করোনার ভ্যাকসিন যেন সবার হয়: বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা

করোনার ভ্যাকসিন যেন সবার হয়: বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, চট্টগ্রাম নিউজ। : বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা থেকে যুক্তরাষ্ট্র বেরিয়ে গেছে। ট্রাম্প গতকাল ঘোষণাটি দেওয়ার পর ৩৭ দেশকে...বিস্তারিত


চট্টগ্রামে নতুন আরও ১১৮ জন করোনা রোগী শনাক্ত

চট্টগ্রামে নতুন আরও ১১৮ জন করোনা রোগী শনাক্ত

সিনিয়র রিপোর্টার । : চট্টগ্রামে গত একদিনে (গত ২৪ ঘন্টায়) ৪০৯ জনের করোনার নমুনা পরীক্ষায় ১১৮ জনের পজিটিভ (নতুন) এসেছে।...বিস্তারিত


এখন খোলা হচ্ছেনা পর্যায়ক্রমে খোলা হবে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান: প্রধানমন্ত্রী

এখন খোলা হচ্ছেনা পর্যায়ক্রমে খোলা হবে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান: প্রধানমন্ত্রী

নিউজ ডেস্ক, চট্টগ্রাম নিউজ। : পরিস্থিতি উন্নতি হলে পর্যায়ক্রমে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো খোলা হবে এবং শিক্ষার্থীরা যাতে করোনা...বিস্তারিত


গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় মৃত্যু ৪০, আক্রান্ত ২৫৪৫

গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় মৃত্যু ৪০, আক্রান্ত ২৫৪৫

চট্টগ্রাম নিউজ ডটকম । : মহামারি আকার ধারণ করা করোনা ভাইরাসে দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় সর্বোচ্চ আরও ৪০ জন মারা গেছেন। এ নিয়ে...বিস্তারিত


চট্টগ্রামে আজ একদিনে ২৭৯ জন করোনা রোগী শনাক্ত

চট্টগ্রামে আজ একদিনে ২৭৯ জন করোনা রোগী শনাক্ত

সিনিয়র রিপোর্টার। : চট্টগ্রামে গত একদিনে (গত ২৪ ঘন্টায়) ১২১৯ জনের করোনার নমুনা পরীক্ষায় ২৭৯ জনের পজিটিভ (নতুন) এসেছে।...বিস্তারিত


পার্কভিউ ও রয়েলকে সম্পূর্ণ কোভিড হাসপাতাল ঘোষণা

পার্কভিউ ও রয়েলকে সম্পূর্ণ কোভিড হাসপাতাল ঘোষণা

স্টাফ রিপোর্টার । : চট্টগ্রাম নগরীতে বেসরকারী হাসপাতাল ও ক্লিনিকগুলোতে সব ধরনের রোগী ভর্তি করা হবে।  হাসপাতাল...বিস্তারিত


সর্বপঠিত খবর

কাউন্সিলর জসিমের বাসায় এমপি দিদার অবরুদ্ধ

কাউন্সিলর জসিমের বাসায় এমপি দিদার অবরুদ্ধ

স্টাফ রিপোর্টার । : চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন (চসিক) নির্বাচনে বিদ্রোহী কাউন্সিলর প্রার্থী জহুরুল আলম জসিমের বাসায়...বিস্তারিত


চসিকে তিন মেয়র প্রার্থীর হলফনামায় যার যত সম্পদ!

চসিকে তিন মেয়র প্রার্থীর হলফনামায় যার যত সম্পদ!

জে.জাহেদ, সিনিয়র রিপোর্টার। : চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন (চসিক) নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনীত মেয়র প্রার্থী রেজাউল করিম...বিস্তারিত