আজ শনিবার, ২৩ জানুয়ারী ২০২১ ইং

প্লাস্টিকে বিপর্যস্ত পরিবেশ

নিজস্ব প্রতিবেদক।    |    ১০:৪৮ এএম, ২০২০-১২-২৩



প্লাস্টিকে বিপর্যস্ত পরিবেশ

সব্যসাচী টিটু:
২০০২ থেকে ২০২০। এই ১৮ বছরে পালটে গেল পুরো চিত্র। যেখানে ২০০২ সালে বিশ্বের প্রথম দেশ হিসেবে পলিথিন ব্যাগ নিষিদ্ধের বিধান করেছিল বাংলাদেশ, সেখানে ২০২০ এ এসে সমুদ্র উপকূলে প্লাস্টিক বর্জ্য অব্যাস্থাপনার দিক দিয়ে বাংলাদেশের অবস্থান এখন বেশ উপরের দিকে। এর আগে ২০১৫ সালে এক গবেষনার প্রতিবেদনে বলা হয়েছিল সমুদ্র উপকূলে প্লাস্টিক বর্জ্য অব্যাবস্থাপনায় বাংলাদেশের অবস্থান বিশ্বে ১০ম।

সাম্প্রতিক এক গবেষণায় বিশ্বের নয়জন গবেষকের এক পর্যালোচনা থেকে জানা যায় দেশের পলিথিন ও প্লাস্টিক বর্জ্যের ৮৭ শতাংশই পরিবেশবান্ধব সঠিক ব্যবস্থাপনার মধ্য দিয়ে ফেলা হয় না। যা পরিবেশের ক্ষতি করছে ব্যাপক হারে। 

২২জন পরিবেশ বিজ্ঞানীর আরেকটি দল, তাদের সাম্প্রতিক গবেষণার তথ্য থেকে জানা যায়; বাংলাদেশে প্লাস্টিক দূষণের নতুন নতুন উৎস তৈরি হচ্ছে যা মূলত পদ্মা ও মেঘনা নদীর বিস্তীর্ণ উপকূল জুড়ে অবস্থিত। জেলেদের ফেলে দেওয়া নাইলনের জাল, ব্যাবহার্য সামগ্রী সহ পানির বোতল সবই প্লাস্টিক দূষণের প্রধান কারণ। যা নদীর পানিকে দূষিত করার সাথে সাথে যাচ্ছে মাছের পেটে। 

মূলত গঙা নদীর উৎসস্থল হিমালয় থেকে বঙোপসাগর পর্যন্ত বিস্তীর্ণ উপকূল, অর্থাৎ ভারত, নেপাল এবং বাংলাদেশের প্লাস্টিক দূষণ পরিস্থিতি গবেষণাকারী পরিবেশ বিষয়ক আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠান ন্যাশনাল জিওগ্রাফিক সোসাইটির গবেষণা কার্যক্রমে বিষয়টি উঠে এসেছে। এই সংক্রান্ত দুটি প্রতিবেদনই প্রকাশিত হয়েছে গত নভেম্বরে, সায়েন্স অব দ্য টোটাল এনভায়রনমেন্ট জার্নালে। এই কার্যক্রমে বাংলাদেশ থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, বেসরকারি সংস্থা ওয়াইল্ড টিম ও ইসাবেলা ফাউন্ডেশন অংশ নিয়েছে। আরও ছিল ভারতের ওয়াইল্ডলাইফ ইনস্টিটিউট, যুক্তরাজ্যের অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়, এক্সেটার বিশ্ববিদ্যালয়, প্লাইমাউথ বিশ্ববিদ্যালয় ও জুওলজিক্যাল সোসাইটি অব লন্ডন। 

বাংলাদেশে বর্তমানে প্লাস্টিক তৈরি ও এর ব্যাবহারের মাত্রা ক্রমশ বেড়ে চলেছে। ২০০৬ থেকে ২০১৯ সালে প্রকাশিত ২৪টি গবেষণা প্রতিবেদন পর্যালোচনা করা জানা গেছে বাংলাদেশে প্রতিদিন যে পরিমাণ প্লাস্টিক বর্জ্য তৈরি হয়, অনেক দেশে এক মাসে সে পরিমাণ প্লাস্টিক বর্জ্য হয় না।  বাংলাদেশে প্রতিদিন চার থেকে সাড়ে চার হাজার টন বর্জ্য তৈরি হয়। এর ১৭ শতাংশই প্লাস্টিকজাতীয়। এসব বর্জ্যের অর্ধেকই সরাসরি পানিতে বা নিচু ভূমিতে ফেলা হয়। প্রতিবেদনে বেড়িয়ে এসেছে ভয়াবহ তথ্য যেখানে বলা হচ্ছে প্লাস্টিক বর্জ্যের অবব্যহৃত অংশের বেশির ভাগটাই পলিথিন। এগুলো সরাসরি মাটি ও পানিতে গিয়ে জমা হচ্ছে। ফলে তা মাটি ও পানির জৈব গুণ নষ্ট করছে। একই সঙ্গে তা খাদ্যচক্রে প্রবেশ করে মানুষসহ অন্যান্য প্রাণীর শরীরে প্রবেশ করছে। ফলে ক্যানসারসহ নানা রোগ তৈরিতে রাখছে কার্যকর ভূমিকা। পর্যালোচনা প্রতিবেদনটিতে আরো বলা হয়েছে, ঢাকা, চট্টগ্রাম ও সিলেটের বাজারে যেসব রুই, লইট্টা, চিংড়ি ও সার্ডিন মাছ বিক্রি হচ্ছে, তার অর্ধেকের বেশির দেহে পাওয়া যাচ্ছে মানব স্বাস্থ্যের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর ক্ষুদ্র প্লাস্টিক কণা। নিয়ন্ত্রণহীন এই প্লাস্টিক দূষণে বাড়ছে স্বাস্থ্যঝুঁকি। 
নদী বা সাগরের প্লাস্টিক দূষণের মধ্যে অন্যতম জেলেদের হারিয়ে যাওয়া নাইলনের জাল। এছাড়াও তালিকায় রয়েছে মাছ ধরার অন্য সামগ্রী, প্লাস্টিকের দড়ি, ভাসমান বয়া, প্লাস্টিক বোতল এবং পলিথিন। পদ্মা ও মেঘনা নদীর অববাহিকায় অবস্থিত মানুষের মধ্যে এই দূষণের প্রভাব সবচেয়ে বেশী। গবেষণায় জানা যায় মানুষ ছাড়াও প্রায় ২১ প্রজাতির জলজ প্রাণী রয়েছে ভয়াবহ ঝুঁকিতে। প্লাস্টিক দূষণ নিয়ে কাজ করা অনেক সংস্থা বলছে জেলেদের ফেলে দেয়া প্লাস্টিকের জালে আটকা পড়ে মারা পড়ছে মাছ, কাছিম ভোদর সহ নানা প্রাণী। অতি ক্ষুদ্র প্লাস্টিক কণা নদী ও জলাশয়ের মাছের পেটে চলে যাচ্ছে। যা মানুষের খাদ্যচক্রে ঢুকে পড়ছে প্রতিনিয়ত। এসব প্লাস্টিক খাদ্যের মাধ্যমে মানুষের শরীরে প্রবেশ করলে তা ক্যানসার, উচ্চ রক্তচাপসহ তৈরি করছে নানা রোগবালাই। মাছের পেটে থাকা এই সমস্ত ক্ষুদ্র প্লাস্টিক কণা বা মাইক্রোপ্লাস্টিক বিভিন্ন মাধ্যমে চলে যাচ্ছে হাঁস মুরগীর পেটে, ফলে ব্যাহত হচ্ছে বৃদ্ধি। প্লাস্টিক পণ্যের ব্যাবহার যেভাবে বেড়ে চলেছে তা আমাদের জীব বৈচিত্র‍্যের জন্য জন্য যেমন হুমকিস্বরূপ তেমনি মানুষের জন্য ডেকে আনবে ভয়াবহ বিপর্যয়। পলিথিনের লাগামহীন ব্যাবহার এবং যত্রতত্র প্লাস্টিক ফেলে দেওয়ার ফলে নালা নর্দমায় পানি নিষ্কাশন যেমন সঠিকভাবে হচ্ছে না তেমনি এসব প্লাস্টিক বর্জ্য নদী, নালা, জলাশয় হয়ে মিশে যাচ্ছে সাগরে। ফলে ক্ষতি হচ্ছে পরিবেশের ক্ষতি হচ্ছে জীব বৈচিত্র‍্যের। গবেষকরা বলছেন প্লাস্টিক বর্জ্য অপসারণে এবং এর ব্যাবস্থাপনায় সরকারকে সুনির্দিষ্ট নীতিমালা অনুসরণ করতে হবে। প্লাস্টিক পণ্য, বিশেষ করে পলিথিন ব্যাবহারে জনগনকে নিরুৎসাহিত করার পাশাপাশি বিকল্প পণ্যের প্রতি আগ্রহী করে তোলার ব্যাপারে সচেতন করে তুলতে হবে। পলিথিন নিষিদ্ধ করা সহ প্লাস্টিক বর্জ্য পরিবেশে যাচ্ছেতাই ভাবে ফেলে দেওয়ার ব্যাপারে আরো কঠোর ভাবে আইন প্রয়োগের প্রয়োজনীয়তার কথা বলেন তারা। 

প্লাস্টিক বর্জ্য অপসারণে ও ব্যাবস্থাপনার প্রক্রিয়াকে কার্যকর এবং গতিশীল করা না গেলে মারাত্মক পরিবেশ দূষণের কবলে পড়বে দেশ। মানুষের স্বাস্থ্য ঝুঁকির পাশাপাশি জীব বৈচিত্র‍্য পড়বে হুমকির মুখে। প্লাস্টিক বর্জ্যের দূষণ যে কতটা ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে তা আমাদের দেশের নদী, নালা খাল-বিলের অবস্থা দেখলেই বোঝা যায়। প্লাস্টিক বর্জ্যের এই দূষণ আমাদের প্রকৃতি ও পরিবেশের জন্য এক অশনি সংকেত। প্লাস্টিক বর্জ্যের এই বিপর্যয় থেকে পরিবেশ বাঁচলে, বাঁচবে জীব, বাঁচবে জীবন।

রিলেটেড নিউজ

কারাগারে নারীসঙ্গ: ডেপুটি জেলারসহ ৩ জনকে প্রত্যাহার

কারাগারে নারীসঙ্গ: ডেপুটি জেলারসহ ৩ জনকে প্রত্যাহার

চট্টগ্রাম নিউজ ডটকম । : গাজীপুরের কাশিমপুর কেন্দ্রীয় কারাগারে বন্দীর সাথে একান্তে স্ত্রীর সময় কাটানোর অভিযোগে...বিস্তারিত


অতীতের রেকর্ড ভেঙেছে সয়াবিন তেলের দাম

অতীতের রেকর্ড ভেঙেছে সয়াবিন তেলের দাম

চট্টগ্রাম নিউজ ডটকম । : অতীতের রেকর্ড ভেঙেছে বোতলজাত সয়াবিন তেলের দাম। এক লিটার বোতলজাত সয়াবিন তেল বিক্রি হচ্ছে ১৩৫...বিস্তারিত


আবারও ধেয়ে আসছে শৈত্যপ্রবাহ

আবারও ধেয়ে আসছে শৈত্যপ্রবাহ

চট্টগ্রাম নিউজ ডটকম । : দুদিন আগেই বিদায় নিয়েছে শৈত্যপ্রবাহ। বুধবারের বৃষ্টির ফলে তাপমাত্রা হালকা কমলেও ১০ ডিগ্রির নিচে...বিস্তারিত


সবার আগে আমি টিকা নেবো: অর্থমন্ত্রী

সবার আগে আমি টিকা নেবো: অর্থমন্ত্রী

ঢাকা প্রতিনিধি। : ভারত থেকে আনা করোনা ভাইরাসের টিকা সবার আগে নেয়ার আগ্রহ দেখিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা...বিস্তারিত


পিকে হালদারের দুই সহযোগী গ্রেপ্তার

পিকে হালদারের দুই সহযোগী গ্রেপ্তার

চট্টগ্রাম নিউজ ডটকম । : জ্ঞাত আয় বহির্ভূত সম্পদ অর্জন, বিভিন্ন অনৈতিক কর্মকাণ্ডের অভিযোগে পিকে হালদারের (প্রশান্ত কুমার...বিস্তারিত


৮ মাসে করোনায় সর্বনিম্ন মৃত্যু

৮ মাসে করোনায় সর্বনিম্ন মৃত্যু

চট্টগ্রাম নিউজ ডটকম । : গত আট মাসে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে দেশে সবচেয়ে কম মৃত্যু হয়েছে গেল ২৪ ঘণ্টায়। এই সময়ে ৮ জনের...বিস্তারিত


সর্বপঠিত খবর

কাউন্সিলর জসিমের বাসায় এমপি দিদার অবরুদ্ধ

কাউন্সিলর জসিমের বাসায় এমপি দিদার অবরুদ্ধ

স্টাফ রিপোর্টার । : চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন (চসিক) নির্বাচনে বিদ্রোহী কাউন্সিলর প্রার্থী জহুরুল আলম জসিমের বাসায়...বিস্তারিত


চসিকে তিন মেয়র প্রার্থীর হলফনামায় যার যত সম্পদ!

চসিকে তিন মেয়র প্রার্থীর হলফনামায় যার যত সম্পদ!

শাহরিয়ার মুনির জিসান, স্টাফ রিপোর্টার। : চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন (চসিক) নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনীত মেয়র প্রার্থী রেজাউল করিম...বিস্তারিত