আজ বুধবার, ২০ জানুয়ারী ২০২১ ইং

অযত্নে মলিন জননী রমা চৌধুরী

নিজস্ব প্রতিবেদক।    |    ১১:১৬ পিএম, ২০২০-১২-১৯



অযত্নে মলিন জননী রমা চৌধুরী

সব্যসাচী টিটু: 
ঝোপঝাড়ের ভেতর ভালো করে লক্ষ্য না করলে বোঝার উপায় নেই এটি একটি সমাধি। সাদামাটা সমাধির ঢিবির উচু অংশ আস্তে আস্তে সরে গিয়ে মাটিতে মিশতে শুরু করেছে, চারপাশে গজিয়ে উঠেছে অসংখ্য গাছপালা আর ঝোপঝাড়। সমাধির উপর চারপায়া ছোট্ট দোচালা টিনের ছাউনিটি ধুলো ময়লা নিয়ে টিকে আছে কোনক্রমে। এভাবেই অযত্ন আর অবহেলায় মলিন হতে শুরু করেছে জননী রমা চৌধুরীর সমাধি।

২০১৮ সালের ৩রা সেপ্টেম্বর চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ৭৬ বছর বয়সে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে নির্যাতিতা বীরাঙ্গনা রমা চৌধুরী। মৃত্যুর পর রমা চৌধুরীর শেষ ইচ্ছা অনুসারে চট্টগ্রামের বোয়ালখালী উপজেলার পোপাদিয়া গ্রামে তাঁর সন্তান টুনুর সমাধির পাশে তাঁকে সমাহিত করা হয়।

মৃত্যুর দুই বছর পার হলেও মুক্তিযুদ্ধে অসামান্য অবদানকারী এই মহিয়সী নারীর জন্য তৈরি হয়নি একটি স্থায়ী সমাধি। তাঁর প্রয়াণ দিবসে সামাজিক, সাংস্কৃতিকসহ বিভিন্ন সংগঠনের পক্ষ থেকে তাঁকে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানানো হলেও বছরের বাকী সময়টা অযত্নে পরে থাকে সমাধি। নূন্যতম দেখভালের কেউ নেই।

জানা যায় এখন পর্যন্ত সরকারি, বেসরকারি কিংবা ব্যাক্তিগত পর্যায়ে একটি স্থায়ী সমাধি বা স্মৃতি স্তম্ভ নির্মাণে নেয়া হয়নি কোন কার্যকর উদ্যোগ। এ ব্যাপারে কথা বলতে গেলে রমা চৌধুরীর প্রতিবেশী বা গ্রামের কারো কাছে পাওয়া যায়নি কোন সদুত্তর। কেন এত বছরেও নির্মাণ হয়নি একটি স্থায়ী সমাধি বা স্মৃতি ফলক এমন প্রশ্নের উত্তরে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সেক্রেটারি বিশ্বজিৎ বিশ্বাস বাপ্পি যিনি রমা চৌধুরীর ছাত্র ছিলেন এবং সম্পর্কে ভাইপো, তিনি চট্টগ্রাম নিউজকে জানান 'ব্যাক্তিগত উদ্যোগে যেমন কেও এগিয়ে আসেননি তেমনি সরকারি ভাবে পাওয়া যায়নি কোন সহযোগিতা।

বিভিন্ন সংগঠন নানা সময় উদ্যোগ নিলেও এখনো দেখা যায়নি আলোর মুখ'। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি জানান 'সমাধি দেখভাল বা সংস্কারে দরকার কোন সেচ্ছাসেবী বা জনবলের, কিন্তু এই ব্যাপারে দায়িত্ব নিতে কেও এগিয়ে আসছে না'। সমাধি ছাড়াও রমা চৌধুরীর স্মৃতিধন্য বাড়িটির অবস্থাও বেশ নাজুক। মাটির বাড়িটির দেয়াল থেকে খসে পড়ছে মাটি। ঘূনে ধরা ঝুরঝুরে বাঁশের খুঁটি বা ব্যাবহার অনুপযোগী দরজা জানালা এমনকি টিনের চাল ধ্বসে পড়তে পারে যেকোন সময়। বাড়িটি জরাজীর্ণ অবস্থায় বহু বছর ধরে এভাবেই পড়ে রয়েছে অনেক ইতিহাসের স্বাক্ষী হয়ে।

যে বাড়িতে আমাদের স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় তিনি নির্যাতিত হন সেটি রক্ষণাবেক্ষণে নেই কারো মাথা ব্যাথা। রমা চৌধুরীর জীবিত একমাত্র পুত্র জহর লাল চৌধুরীর সাথে কথা বলে জানা যায়, ব্যাক্তিগত আর্থিক অস্বচ্ছলতা ও পর্যাপ্ত সহযোগিতা না পাওয়ার কারণে সমাধি কিংবা বাড়ির সংস্কারে আসছে কোন সমাধান।

তিনি চট্টগ্রাম নিউজকে আরো জানান অনুদান বা আর্থিক সহযোগিতার অভাবে মুখ থুবড়ে পড়ে আছে রমা চৌধুরীর বহু বছরের লালিত স্বপ্ন দীপংকর স্মৃতি অনাথালায়, যেটি তিনি জীবদ্দশায় দেখে যেতে পারেননি। 

রমা চৌধুরীর বাড়ি এবং তার সমাধি আমাদের স্বাধীনতা সংগ্রামের এক অনন্য ইতিহাস। মহান মুক্তিযুদ্ধে রমা চৌধুরীর অসামান্য আত্মত্যাগ এবং মুক্তিযুদ্ধ পরবর্তী সময়ে তাঁর সংগ্রামী জীবন সবকিছুই প্রজন্ম থেকে প্রজন্মের কাছে পৌঁছে দিতে প্রয়োজন তাঁর স্মৃতি সংরক্ষণ, এমনটাই মনে করেন রমা চৌধুরীর স্বজনেরা। রমা চৌধুরীর স্মৃতি রক্ষার্থে এবং তাঁকে প্রাপ্য সম্মান জানাতে দ্রুত একটি স্থায়ী সমাধি বা স্মৃতি স্তম্ভ নির্মানে কার্যকর পদক্ষেপের দাবী জানান তারা।

রমা চৌধুরীর প্রতিবেশীরা মনে করেন তিনি এই দেশকে অনেক কিছু দিয়েছেন, তাঁর বাড়ি এবং সমাধি সংরক্ষণ মানেই আমাদের ইতিহাস, আমাদের মুক্তিযুদ্ধকে সংরক্ষণ। রমা চৌধুরীর ছেলে জহর লাল চৌধুরী জানান সরকারি বা বেসরকারি পর্যায়ে উদ্যোগ গ্রহণ করলে সমাধি নির্মাণের পাশাপাশি, তাঁর মায়ের ইচ্ছা অনুযায়ী বাড়িটিতে দীপংকর অনাথালয় এবং একটি পাঠাগার তৈরি সম্ভব। যেখানে তার মত অনেকের কর্মসংস্থানের সুযোগ তৈরি হবে বলে তিনি মনে করেন। 

দীর্ঘ সংগ্রামী জীবনে কখনো কারো কাছে হাত পাতেননি রমা চৌধুরী। মহান মুক্তিযুদ্ধে সম্ভ্রম হারিয়েছেন। স্বামী সন্তান হারোনোর শোককে শক্তিতে রুপান্তর করে লড়াই করেছেন আমৃত্যু। নিজের লেখা বই নগ্ন পায়ে ফেরী করে বেড়িয়েছেন এই বীরাঙ্গনা। আর আমাদের শিখিয়ে; দেখিয়ে দিয়েছেন সংগ্রামের এক নতুন অধ্যায়।

তিনি শুধু আমাদের ইতিহাস নন আমাদের অনুপ্রেরণা। রমা চৌধুরীর স্মৃতি রক্ষার্থে তাঁর সমাধির পাশাপাশি বাড়ির সংস্কার প্রয়োজন, প্রয়োজন সম্মিলিত উদ্যোগে দীপংকর অনাথালয় ও পাঠাগার নির্মাণ। তাহলেই রমা চৌধুরীর ত্যাগ ও সংগ্রামের আদর্শকে বয়ে নিয়ে যাওয়া যাবে প্রজন্ম থেকে প্রজন্মে। বাঁচিয়ে রাখা যাবে একটি আত্মত্যাগ, একটি সংগ্রাম ও একজন বীরাঙ্গনা, জননী রমা চৌধুরীকে।

রিলেটেড নিউজ

স্মৃতির পাতা দুলে দুলে ওঠে

স্মৃতির পাতা দুলে দুলে ওঠে

চট্টগ্রাম নিউজ ডটকম । : শুকলাল দাশ: জীবনের কতো কতো সেই দিনগুলো কবে ফেলে আসা কতো মান-অভিমান-খুনসুটি-লুকোছাপা কতো...বিস্তারিত


ফেলে আসা দিন

ফেলে আসা দিন

নিজস্ব প্রতিবেদক। : শুকলাল দাশ: ফেলে আসা পাঠশালারই দিন ভেবে ভেবে খেই হারিয়ে ফেলা হারিয়ে গেছে স্বপ্ন রঙিন বেলা বন...বিস্তারিত


স্যার ফজলে হাসান আবেদের প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী আজ

স্যার ফজলে হাসান আবেদের প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী আজ

নিজস্ব প্রতিবেদক। : বিশ্বের অন্যতম শীর্ষ বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা ব্র্যাকের প্রতিষ্ঠাতা স্যার ফজলে হাসান আবেদের...বিস্তারিত


বিজয় আসুক ঘরে ঘরে

বিজয় আসুক ঘরে ঘরে

নিজস্ব প্রতিবেদক। : সব্যসাচী টিটু: ১৬ই ডিসেম্বর ১৯৭১। রেসকোর্স ময়দানে অনেকটা তড়িঘড়ি করেই আয়োজন করা হয় আত্মসমর্পণ...বিস্তারিত


রাও ফরমান আলীর ভূত

রাও ফরমান আলীর ভূত

নিজস্ব প্রতিবেদক। : সব্যসাচী টিটু : ১২ই ডিসেম্বর ১৯৭১ সাল। শীত জাঁকিয়ে বসেছে। আর্মি সদর দফতরের পূবের বারান্দায় বসে,...বিস্তারিত


ভালোবাসা

ভালোবাসা

নিজস্ব প্রতিবেদক। : শুকলাল দাশ হাত বাড়ালে ছুঁয়ে দেখি নিঝুম ভোরের পাখি শিউলি নাকি বকুলবালা অবাক চেয়ে থাকি। ঝিম...বিস্তারিত


সর্বপঠিত খবর

কাউন্সিলর জসিমের বাসায় এমপি দিদার অবরুদ্ধ

কাউন্সিলর জসিমের বাসায় এমপি দিদার অবরুদ্ধ

স্টাফ রিপোর্টার । : চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন (চসিক) নির্বাচনে বিদ্রোহী কাউন্সিলর প্রার্থী জহুরুল আলম জসিমের বাসায়...বিস্তারিত


চসিকে তিন মেয়র প্রার্থীর হলফনামায় যার যত সম্পদ!

চসিকে তিন মেয়র প্রার্থীর হলফনামায় যার যত সম্পদ!

শাহরিয়ার মুনির জিসান, স্টাফ রিপোর্টার। : চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন (চসিক) নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনীত মেয়র প্রার্থী রেজাউল করিম...বিস্তারিত