আজ শনিবার, ২৩ জানুয়ারী ২০২১ ইং

বিজয় আসুক ঘরে ঘরে

নিজস্ব প্রতিবেদক।    |    ১২:১৮ পিএম, ২০২০-১২-১৬



বিজয় আসুক ঘরে ঘরে

সব্যসাচী টিটু:
১৬ই ডিসেম্বর ১৯৭১। রেসকোর্স ময়দানে অনেকটা তড়িঘড়ি করেই আয়োজন করা হয় আত্মসমর্পণ অনুষ্ঠানের। দ্রুত ঢাকা ক্লাব থেকে আনা হয় একটি টেবিল ও দুটো চেয়ার। দুই বাহিনীর শীর্ষ সেনা কর্মকর্তাদের সাথে প্রস্তুত করা হয় সমস্ত সামরিক আয়োজনের।

পাকিস্তানের পক্ষে আমির আব্দুল্লাহ খান নিয়াজী প্রায় ৯৩ হাজার সৈন্য নিয়ে যৌথবাহিনীর প্রধান জগজিত সিং অরোরার কাছে আত্মসমর্পণের দলিলে সই করেন। সৃষ্টি হয় এক অদ্বিতীয় ইতিহাসের। দীর্ঘ নয় মাসের রক্তক্ষয়ী এক সংগ্রামের মধ্য দিয়ে জন্ম নেয় স্বাধীন সার্বভৌম একটি রাষ্ট্রের, একটি পতাকা, একটি মানচিত্রের। পৃথিবীর সব স্বাধীন দেশের পাশে যোগ হয় একটি নাম। অভ্যুদয় ঘটে একটি দেশের। প্রিয় স্বদেশ, প্রিয় মাতৃভূমি, প্রিয় বাংলাদেশের। 

প্রতি বছর ১৬ই ডিসেম্বর জাতীয়ভাবে দিনটিকে বিজয় দিবস হিসেবে পালন করা হয়। ৩১ বার তোপধ্বনির মাধ্যমে সূচনা হয় দিবসের। জাতীয় প্যারেড স্কোয়ারে সম্মিলিত সামরিক বাহিনীর কুচকাওয়াজ কিংবা স্মৃতি সৌধে শহীদদের উদ্দেশ্যে  রাস্ট্রপ্রধান থেকে শুরু করে সাধারণ জনগণের ফুলেল শ্রদ্ধার মত আনুষ্ঠানিতার আয়োজনে থাকে না কোন ঘাটতি।

পাড়ায় মহল্লায় মাইকে বাজানো হয় দেশাত্ববোধক গান।  রাজনৈতিক, সামাজিক, সাংস্কৃতিক বিভিন্ন সংগঠনের পক্ষ থেকে নেয়া হয় নানান কর্মসূচীর। কিন্তু দেশের আপামর জনসাধারণের কতজনই বা উপলব্ধি করতে পারেন এই দিবসটিকে, কতজনই বা বোঝেন এর তাৎপর্য। কতজনই বা জানেন দেশের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্বের পেছনের ইতিহাস।

কতজনই বা দেশাত্ববোধের চেতনাকে গভীর অনুভূতিতে জাগিয়ে তুলতে পারেন। এটা কি শুধুই একটি দিবস নাকি এর চেয়ে বেশী কিছু? বিজয়ের পূর্নতা কি একটি দেশের স্বাধীনতায়, নাকি একটি মানচিত্র ও পতাকার অর্জনে? 

ক্ষুদ্র মৌসুমি ব্যাবসায়ী হোসেন আলী ডিসেম্বরের শুরু থেকে বিজয় দিবস অব্দি পথে পথে বাংলাদেশের জাতীয় পতাকা বিক্রী করেন। সপ্তাহ দুয়েকের এই ব্যাবসায় বিক্রী বাট্টা ভালোই হয় বলে জানান। বিজয় দিবস সম্পর্কে তার কাছ থেকে জানতে চাওয়া হলে, ৭১ এর যুদ্ধে বাংলাদেশ এই দিনে জিতেছিল এর বেশী কিছু তিনি জানেন না বলে জানান। ভালো বিক্রী, ভালো আয়, ভালো খাবার এসবই তার কাছে বিজয়ের মত। দেশ নিয়ে অতশত ভাবেন না।

হোসেন আলীর মত দিনমজুর, রিক্সাচালক, খেটে খাওয়া এমন হাজার লাখো মানুষ আছে যাদের কাছে সামান্য আর্থিক স্বচ্ছলতার আরেক নাম বিজয়, তাদের কাছে ১৬ই ডিসেম্বর নিছক আর কয়েকটা সাধারণ দিনের মতই। একাত্তর পরবর্তী প্রজন্ম তথা বর্তমান প্রজন্মের অনেকেই জানেন না মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস। জানেন না একটি স্বাধীন দেশে সুনাগরিক হিসেবে রাস্ট্রের প্রতি দায়িত্ব বা কর্তব্য কতটুকু।

স্বাধীনতা অর্জনের পর তা রক্ষা করাটাই যেমন আসল ব্যাপার তেমনি বিজয়কে অর্থবহ করতে মানুষের মৌলিক অধিকারের সাথে সাথে অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি নিশ্চিত করাটাও সত্যিকারের বিজয়। আর এক বছর পরেই বাংলাদেশ উৎযাপন করতে যাচ্ছে বিজয়ের সুবর্ন জয়ন্তী। যুদ্ধবিধ্বস্ত একটি দেশ ঘুরে দাঁড়িয়েছে, সামনে এগিয়ে যাচ্ছে একটু একটু করে। অর্থনীতি শক্তিশালী হচ্ছে পুর্বের যে কোন সময়ের চেয়ে বেশী।

শীগ্রই পদ্মা সেতুর মত বড় কয়েকটি অর্জন পেতে যাচ্ছি আমাদের ঝুলিতে। উন্নয়নে এসেছে অভাবনীয় গতিশীলতা।  কয়েক বছরের মধ্যেই আমরা চলে যাচ্ছি  উন্নয়নশীল দেশের কাতারে। তবুও অপূর্নতা কোথাও কোথাও থেকেই যায়। এই অপূর্নতা ঘরে ঘরে বিজয় না আসার অপূর্নতা। দরিদ্র জনগোষ্ঠীর মন্থর উন্নয়ন সেই সাথে ধর্মান্ধতা, দূর্নীতি, দেশাত্ববোধের অভাব এই সবই অপূর্নতা।

যে জাতি লাখো শহীদের বিনিময়ে পেয়েছে স্বাধীনতা, যে স্বাধীনতা কারুর দানে পাওয়া নয়, যে স্বাধীনতার পরতে পরতে লেখা আছে শোষণ আর সংগ্রামের এক রক্তক্ষয়ী ইতিহাস সে জাতির বিজয়ের এত বছর পরেও এত অপূর্নতা কোন ভাবেই কাম্য নয়। তাই যুদ্ধ এখনো শেষ হয়নি, আসেনি প্রকৃত বিজয়। কেও কেও স্বপ্ন দেখেছিল স্বাধীন বাংলাদেশের, গোটা জাতির ভেতর সেই স্বপ্নের বীজ বোপন হয়েছিল বলেই ১৬ই ডিসেম্বর এসেছিল বিজয়।

এই প্রজন্মের মধ্যেও আরেকটি বিজয়ের স্বপ্ন আঁকা হোক ; যে স্বপ্নে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় একটি অসাম্প্রদায়িক, অর্থনৈতিক সমৃদ্ধশালী দেশ গঠন হবে, যেখানে দেশের মানুষ রাস্ট্রের প্রতি অনুগত থাকবে দেশাত্মবোধের মহত্ত্বে, পরম মমতায় লালিত হবে দেশের ইতিহাস, ঐতিহ্য আর সংস্কৃতি।

বিজয় আসবে সাম্প্রদায়িকতা, ধর্মান্ধতা, দুর্ণীতির বিরুদ্ধে। যেখানে মানুষ জানবে এবং অনুধাবন করবে তার প্রকৃত ইতিহাস। সত্যিকারের বিজয়ে ভাস্বর হবে এই জাতি। বিজয় উদযাপন হবে ঘরে ঘর, জয় বাংলা বাংলার জয়ে।

রিলেটেড নিউজ

কারাগারে নারীসঙ্গ: ডেপুটি জেলারসহ ৩ জনকে প্রত্যাহার

কারাগারে নারীসঙ্গ: ডেপুটি জেলারসহ ৩ জনকে প্রত্যাহার

চট্টগ্রাম নিউজ ডটকম । : গাজীপুরের কাশিমপুর কেন্দ্রীয় কারাগারে বন্দীর সাথে একান্তে স্ত্রীর সময় কাটানোর অভিযোগে...বিস্তারিত


অতীতের রেকর্ড ভেঙেছে সয়াবিন তেলের দাম

অতীতের রেকর্ড ভেঙেছে সয়াবিন তেলের দাম

চট্টগ্রাম নিউজ ডটকম । : অতীতের রেকর্ড ভেঙেছে বোতলজাত সয়াবিন তেলের দাম। এক লিটার বোতলজাত সয়াবিন তেল বিক্রি হচ্ছে ১৩৫...বিস্তারিত


আবারও ধেয়ে আসছে শৈত্যপ্রবাহ

আবারও ধেয়ে আসছে শৈত্যপ্রবাহ

চট্টগ্রাম নিউজ ডটকম । : দুদিন আগেই বিদায় নিয়েছে শৈত্যপ্রবাহ। বুধবারের বৃষ্টির ফলে তাপমাত্রা হালকা কমলেও ১০ ডিগ্রির নিচে...বিস্তারিত


সবার আগে আমি টিকা নেবো: অর্থমন্ত্রী

সবার আগে আমি টিকা নেবো: অর্থমন্ত্রী

ঢাকা প্রতিনিধি। : ভারত থেকে আনা করোনা ভাইরাসের টিকা সবার আগে নেয়ার আগ্রহ দেখিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা...বিস্তারিত


পিকে হালদারের দুই সহযোগী গ্রেপ্তার

পিকে হালদারের দুই সহযোগী গ্রেপ্তার

চট্টগ্রাম নিউজ ডটকম । : জ্ঞাত আয় বহির্ভূত সম্পদ অর্জন, বিভিন্ন অনৈতিক কর্মকাণ্ডের অভিযোগে পিকে হালদারের (প্রশান্ত কুমার...বিস্তারিত


৮ মাসে করোনায় সর্বনিম্ন মৃত্যু

৮ মাসে করোনায় সর্বনিম্ন মৃত্যু

চট্টগ্রাম নিউজ ডটকম । : গত আট মাসে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে দেশে সবচেয়ে কম মৃত্যু হয়েছে গেল ২৪ ঘণ্টায়। এই সময়ে ৮ জনের...বিস্তারিত


সর্বপঠিত খবর

কাউন্সিলর জসিমের বাসায় এমপি দিদার অবরুদ্ধ

কাউন্সিলর জসিমের বাসায় এমপি দিদার অবরুদ্ধ

স্টাফ রিপোর্টার । : চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন (চসিক) নির্বাচনে বিদ্রোহী কাউন্সিলর প্রার্থী জহুরুল আলম জসিমের বাসায়...বিস্তারিত


চসিকে তিন মেয়র প্রার্থীর হলফনামায় যার যত সম্পদ!

চসিকে তিন মেয়র প্রার্থীর হলফনামায় যার যত সম্পদ!

শাহরিয়ার মুনির জিসান, স্টাফ রিপোর্টার। : চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন (চসিক) নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনীত মেয়র প্রার্থী রেজাউল করিম...বিস্তারিত