আজ শুক্রবার, ২ অক্টোবর ২০২০ ইং

নারী নির্যাতন: আইন ও বাস্তবতা

চট্টগ্রাম নিউজ ডটকম ।    |    ১০:৫২ পিএম, ২০২০-০৮-২৫



নারী নির্যাতন: আইন ও বাস্তবতা

অবিক রায়: স্বাধীনতার পর থেকেই নারীর ক্ষমতায়ন শক্তিশালী করার উদ্যেগ ছিল প্রতিটি সরকারেই। ফলশ্রুতিতে সামাজিক সূচকে বাংলাদেশের প্রশংসনীয় সাফল্যেও এসেছে।

নারী উন্নয়নের স্বীকৃতি স্বরুপ বাংলাদেশে জাতিসংঘেরগৌরাবময় ‘প্লানেট ৫০-৫০ চ্যাম্পিয়ন’ এবং ‘এজেন্ট অব চেঞ্জঅ্যাওয়ার্ড’ অর্জন করেছে। গ্লোবাল সামিট অব উইমেনের পক্ষ থেকে ২০১৮ সালে ‘গ্লোবাল উইমেনস লিডারশিপঅ্যাওয়ার্ড’ অর্জন করেছে বাংলাদেশের নারী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।কিন্তু বাংলাদেশের সামাজিক বাস্তবতায় নারীর অবস্থান কিংবা সম্মান সেভাবে বদলায় নি।

এর প্রমান পাওয়া যায় বিগত বছরের বিভিন্ন পরিসংখ্যানে। পুলিশ সদর দপ্তরের ২০১৭ সালে হিসেব অনুয়ায়ী নারী নির্যাতনে মামলা হয়েছে ১৫ হাজার ২১৯ টি।

শুধুমাত্র তাই নয় করোনাভাইরাস এর সংক্রমনে যখন পুরো দেশগৃহবন্দীছিলোতখনো হয়েছে নারী নির্যাতন। উল্লেখযোগ্য কিছু ঘটনার উদাহরন টানলে যেগুলো উঠে আসে সেগুলো হল, দাম্পত্য কলহকে কেন্দ্র করে চট্টগ্রামের সাতকানিয়ায় স্বামী তার স্ত্রীকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে (১১ মার্চ, প্রথম আলো); পারিবারিক কলহের জের ধরে সিরাজগঞ্জেররায়গঞ্জ উপজেলায় এক ব্যক্তি তার স্ত্রীর মুখে অ্যাসিড ছুড়ে ঝলসে দেন (২৮ মার্চ, প্রথম আলো); মাদকাসক্ত স্বামীর শারীরিক ও মানসিক নির্যাতনের শিকার হয়ে আত্মহত্যা করেন শুকলা (২০) নামের এক গৃহবধূ (৮ মার্চ, প্রথম আলো);  যৌতুকের দাবিতে ফেনীতেনির্মমভাবে স্ত্রীকে কুপিয়ে হত্যা করে স্বামী (১৫ এপ্রিল, ডেইলি স্টার); ঢাকায় নারী আন্দোলন নেত্রী শারীরিক নির্যাতন করে নারী গৃহকর্মীকে (১৭ এপ্রিল, কালের কণ্ঠ); কুষ্টিয়ায়খোকসায় সংখ্যালঘু গৃহবধূর ঘরে ঢুকে ধর্ষণ ও ভিডিও ধারণ (১০ এপ্রিল, সমকাল)।
এই সব অমানবিক ঘটনাগুলোর সাথে কক্সবাজারেরচকরিয়ায় ঘটে গেলো আরো একটি অমানবিক ঘটনা।

একজন বিধবা নারী ও তার মেয়েকে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান চুরির অপবাদ দিয়ে দড়ি দিয়ে বেধেজনসম্মুখে অপমান ও মানসিক নির্যাতন করেন। এবং পরবর্তীতে সেই অমানবিক ঘটনার স্বীকার মা মেয়ে শারীরিক নির্যাতনেরও স্বীকার হন।

খবরে প্রকাশ সেই বিধবা নারীটিরমেয়েটিকে বিয়ে করতে না পেরে এমন আইন বিরুদ্ধ যৌন নিপিড়নের ঘটনা ঘটান সেই অভিযুক্ত ইউপি চেয়ারম্যান। কিন্তু দেশের আইন কি বলছে যৌন নিপিড়নের বিরুদ্ধে নারীর অধিকার নিয়ে, সেটা একনজড়ে জেনে নেয়া যাক।

বাংলাদেশের বিভিন্ন আইনে যৌন নিপীড়ন এর বিরুদ্ধে প্রতিকারের বিধান রয়েছে। যদি কোনো ব্যাক্তি যৌন কামনা চরিতার্থ করার জন্য বলপ্রয়োগ করে কিংবা যৌন নিপিড়নমূলক কিংবা অশালীন কোনো আচরণ করে তবে তিনি যৌন নিপিড়নের অভিযোগে অভিযুক্ত হবে। যেমন, প্রাতিষ্ঠানিক কিংবা পেশাগত ক্ষমতা ব্যাবহার করে কেউ যদি কোনো মহিলাকে অনাকাঙ্খিত যৌন আবেদনমূলক আচরণ করে, প্রাতিষ্ঠানিক বা পেশাগত ক্ষমতা ব্যবহার করে কারও সাথে যৌন সম্পর্ক স্থাপনের চেষ্টা করে, ব্ল্যাকমেইল অথবা চরিত্র লঙ্ঘনের উদ্দেশ্যে স্থির বা চলমান চিত্র ধারণ করে কিংবা প্রেম নিবেদনে করে প্রত্যাখ্যান হয়ে হুমকি দেয় বা চাপ প্রয়োগ করে কিংবা ভয় দেখিয়ে বা মিথ্যা আশ্বাস দিয়ে প্রতারনার মাধ্যমে যৌন সম্পর্ক স্থাপন বা স্থাপনে চেষ্টা করে তবে সেগুলো যৌন নিপিড়নের আওতায় পড়বে।

বাংলাদেশ দন্ডবিধি, নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন, ২০০০ এর ধারা-১০, ৯ক এ যৌন পীড়নের শাস্তি এবং বাংলাদেশ সংবিধানের ৩২ ও ৩৬ অনুচ্ছেদে এবং জাতিসংঘের শিশু অধিকার সনদের ৩৪ অনুচ্ছেদে এ সর্ম্পকে স্পষ্ট বলা আছে।

চকরিয়ার চেয়ারম্যান এর দু'জন নারীকে নির্যাতনের গঠনায় আমাদের বাংলাদেশ দন্ডবিধি ১৮৬০ এর ৩৫৪ ধারা খুব সুন্দরভাবে মিলে যায়। এই ধারা অনুসারে কোন ব্যক্তি নারীর শালীনতা নষ্ট করার অভিপ্রায়ে বা তার শালীনতা নষ্ট হতে পারে জেনে-শুনে কোন নারীকে আক্রমন করে বা অপরাধমূলক বলপ্রয়োগ করে বা জাপটে ধরে বা স্পর্শকাতর অঙ্গ সমূহে স্পর্শ করে বা ব্যক্তিগত মর্যাদার হানি ঘটায় তাহলে ওই ব্যক্তি ৩৫৪ ধারার অপরাধে অভিযুক্ত হবে।

এ অপরাধের শাস্তি দু’ বছরের কারাদণ্ড অথবা জরিমানা অথবা উভয়বিধ দণ্ড। আমরা যদি এই ধারায় আদালতের একটি সিদ্ধান্ত দেখি, সেটি হল "পর্দানশীন কোন মুসলিম মহিলার বোরকা টানলে এবং তা ছিড়ে ফেললে এ ধারার অপরাধে অভিযুক্ত হবে। (১৯৮২ পিএচসি ৬৯৮)। এখন মহামান্য আদালত কি ব্যাবস্থা নেয় সেটাই দেখার বিষয়। বাংলাদেশের সর্বোচ্চ আইন সংবিধানের ৩২ ও ৩৬ অনুচ্ছেদ- গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের সংবিধানের ৩২ অনুচ্ছেদে ‘আইনানুযায়ী ব্যতীত জীবন ও ব্যক্তি স্বাধীনতা হতে কোন ব্যক্তিকে বঞ্চিত করা যাবে না’। এই অনুসারে দুজন নারীকে যেভাবেজনসম্মুখে নির্যাতন করা হয়েছে তা স্পষ্টভাবে সংবিধান পরিপন্থী।

তাছাড়া, ২০০৮ সালের ৭ আগষ্ট বাংলাদেশ জাতীয় মহিলা আইনজীবী সমিতি নারী ও শিশুদের প্রতি যৌন হয়রানি প্রতিরোধের দিক নির্দেশনা চেয়ে একটি রিট দায়ের করে। এরই পরিপ্রেক্ষিতে ১৪ মে-২০০৯ হাইকোর্ট বিভাগের বিচারপতি সৈয়দ মোহাম্মাদমাহমুদ হোসেন ও বিচারপতি কামরুল ইসলাম সিদ্দিকি; কর্মক্ষেত্র, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, সব সরকারি-বেসরকারি, আধা-সরকারি অফিস এবং সব ধরনের প্রতিষ্ঠানে নারীর প্রতি যৌন হয়রানি প্রতিরোধে একটি দিকনির্দেশনা প্রদান করেন। কিন্তু  আদৌ তা বাস্তবায়িত হয়নি।

২০১৫ সালে বিধবা ও নারী পরিত্যক্ত নারীর হার ছিল ৯.৮ শতাংশ। আর সর্বশেষ পরিসংখ্যান বলছে, দেশে এখন ১০ শতাংশ নারী বিধবা, তালাকপ্রাপ্ত অথবা বিচ্ছিন্ন। এর মধ্যে বিধবা ৮.৭ শতাংশ। এই বিধবা নারীদের বিরাট অংশ রয়ে গেছে সামাজিক নিরাপত্তার বাইরে, চকরিয়ায়নির্যাতিতনারীটিও সেই অনিরাপদ গোষ্ঠীরই অংশবিশেষ। বিধবা, স্বামী পরিত্যক্ত এই নারীদের দিতে হবে বিশেষ সুযোগ ও সুরক্ষা।

নারী সহিংসতা রোধে আছে আইন, বিভিন্ন ধরনের আন্তর্জাতিক সনদ ও চুক্তি। কিন্তু এগুলোর কোনো বাস্তবায়ন নেই।শুধুমাত্র আইন নয় নারীর প্রতি সহিংসতা রোধের জন্য আইন ছাড়াও আমাদের প্রয়োজন ইতিবাচকদৃষ্টিভঙ্গির পরিবর্তন। এই দৃষ্টিভঙ্গির পরিবর্তনই নারীর প্রতি সহিংসতা প্রতিরোধ করতে পারবে।

যার মাধ্যমে নারী পাবে সহিংসতার প্রতিকার। গড়ে উঠবে সহিংসতামুক্ত একটি সুন্দর সমাজ। তাই নারীদের প্রতি আমাদের এই দৃষ্টিভঙ্গি পরিবর্তনে পরিবার ও সমাজ তথা আমাদের সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে।

লেখক : আইনি কর্মকর্তা, বেসরকারি উন্নয়নমূলক সংস্থা।

রিলেটেড নিউজ

অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলমের জানাজা সম্পন্ন

অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলমের জানাজা সম্পন্ন

ঢাকা প্রতিনিধি। : বাংলাদেশের অ্যাটর্নি জেনারেল, সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি মাহবুবে আলমের জানাজা...বিস্তারিত


মাহবুবে আলমের জানাজার সময় পরিবর্তন করে এখন দুপুর ১২টায়

মাহবুবে আলমের জানাজার সময় পরিবর্তন করে এখন দুপুর ১২টায়

বিশেষ প্রতিনিধি। : অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলমের নামাজে জানাজা সোমবার (২৮ সেপ্টেম্বর) বেলা ১১টায় হওয়ার কথা ছিল।...বিস্তারিত


অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলমের সম্মানে আজ বসছে না সুপ্রিম কোর্ট

অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলমের সম্মানে আজ বসছে না সুপ্রিম কোর্ট

বিশেষ প্রতিনিধি। : সদ্য প্রয়াত সিনিয়র আইনজীবী ও অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলমের মৃত্যুতে তার প্রতি সম্মান...বিস্তারিত


অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলমের জানাজা সকাল ১১টায়

অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলমের জানাজা সকাল ১১টায়

বিশেষ প্রতিনিধি। : সদ্য প্রয়াত দেশবরেণ্য আইনজীবী ও বাংলাদেশের অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলমের নামাজে জানাজা...বিস্তারিত


বিচারপতি তারিক উল হাকিম অবসরে যাচ্ছেন

বিচারপতি তারিক উল হাকিম অবসরে যাচ্ছেন

বিশেষ প্রতিনিধি। : অবসরে যাচ্ছেন আপিল বিভাগের বিচারপতি তারিক উল হাকিম। সংবিধান অুনসারে ৬৭ বছর পূর্ণ হওয়ায় ১৯...বিস্তারিত


খালেদা জিয়ার মুক্তির মেয়াদ বাড়লো আরও ছয় মাস

খালেদা জিয়ার মুক্তির মেয়াদ বাড়লো আরও ছয় মাস

চট্টগ্রাম নিউজ ডটকম । : বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তির মেয়াদ আরো ছয় মাসের জন্য বাড়ানো হয়েছে। তবে এই মুক্তির...বিস্তারিত


সর্বপঠিত খবর

কাউন্সিলর জসিমের বাসায় এমপি দিদার অবরুদ্ধ

কাউন্সিলর জসিমের বাসায় এমপি দিদার অবরুদ্ধ

স্টাফ রিপোর্টার । : চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন (চসিক) নির্বাচনে বিদ্রোহী কাউন্সিলর প্রার্থী জহুরুল আলম জসিমের বাসায়...বিস্তারিত


চসিকে তিন মেয়র প্রার্থীর হলফনামায় যার যত সম্পদ!

চসিকে তিন মেয়র প্রার্থীর হলফনামায় যার যত সম্পদ!

জে.জাহেদ, সিনিয়র রিপোর্টার। : চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন (চসিক) নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনীত মেয়র প্রার্থী রেজাউল করিম...বিস্তারিত