গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয় কর্তৃক নিবন্ধিত। নিবন্ধন নং – ৬০
Sunday, 19 May 2024

বৈসাবি উৎসবকে ঘিরে ৩ পার্বত্য জেলায় শুরু হয়েছে বর্ণাঢ্য আয়োজন

চট্টগ্রাম নিউজ ডেস্ক

প্রকৃতির অমোঘ নিয়ম মেনে প্রতিবছরই ফিরে আসে বিজু, বিহু, বিষু, সাংগ্রাই উৎসব। পাহাড়ে ছড়িয়ে পড়ে প্রাণের উচ্ছ্বাস-উচ্ছলতা। নব আনন্দে জাগে পাহাড়ের প্রাণ।পুরো পার্বত্যাঞ্চল আর সাগর বিধৌত কক্সবাজারজুড়ে শুরু হয় আনন্দ-উচ্ছ্বাস।

বর্ষবরণকে ঘিরে পাহাড়ি জনপদের উৎসব দিন দিন সারাদেশের মানুষের কাছে ব্যাপক সাড়া ফেলেছে। ফলে বৈসাবি উৎসব হয়ে ওঠে পাহাড়ের প্রাণের উৎসব।

বরাবরের মতোই বিদায়ী বছরের সব দুঃখ-কষ্ট আর গ্লানি পানিতে ভাসিয়ে দিয়ে সোমবার নতুন বছরে পথচলা শুরু করেছে পাহাড়, হ্রদ আর অরণ্যঘেরা জনপদের মানুষ। বর্ষবরণ ও বিদায়ের অনুষ্ঠান বৈসাবি ঘিরে উৎসবের আমেজ এখন তিন পার্বত্য জেলা রাঙামাটি, খাগড়াছড়ি আর বান্দরবানের জনপদে।

বিলাইছড়িতে বর্ণাঢ্য আয়োজনের মধ্যে দিয়ে বিজু উদযাপন অনুষ্ঠিত হলো। এতে পাহাড়ে জমে উঠেছে বিজু, সাংগ্রাই, বৈসুক, বিষু’র উৎসব।

সোম,মঙ্গল, বুধ, বৃহস্পতি ও শুক্রবার পর্যন্ত উপজেলার ইউনিয়ন ও গ্রাম পর্যায়ে বিজু উৎসব উদযাপন হবে বলে জানা যায়।

সোমবার সকালে বাজার ঘাট এলাকায় নদীতে ফুল ভাসানো হয়,পরে বাজার হয়ে উপজেলার প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে উপজেলা স্টোডিয়াম দীঘলছড়ি মাঠে এসে র‍্যালিটি শেষ করে বিভিন্ন ইভেন্টের ঐতিহ্যবাহী খেলাধূলা, ডিসপ্লে, পিঠা উৎসব ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়

রাঙামাটি শহরের রাজবাড়ী ঘাটে গতকাল সকালে চাকমা জনগোষ্ঠীর ফুলবিজুর আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করা হয়।

একইভাবে সকাল ৯টায় শহরের গর্জনতলি এলাকায় পানিতে ফুল ভাসিয়ে বৈসুক উৎসবের সূচনা করে ত্রিপুরা জনগোষ্ঠী। পানিতে ফুল ভাসানোর পর বাড়ির প্রবীণ ব্যক্তিদের স্নান, সম্মাননা প্রদান ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে শুরু হয় ত্রিপুরাদের বৈসুক।

ফুলবিজুর পর অনুষ্ঠিত হবে মূল বিজু। বাড়ি বাড়ি বেড়ানো আর খানাপিনার মধ্য দিয়ে পালিত হবে বিজুর মূল আয়োজন। এ ছাড়া রাঙামাটির কাপ্তাই উপজেলার চিতমরমে অনুষ্ঠিত হয় মারমা জনগোষ্ঠীর সাংগ্রাই জলোৎসব।

খাগড়াছড়িতে নদীতে ফুল ভাসিয়ে চাকমারা ফুল বিজু উদ্যাপন করেন। ত্রিপুরা জনগোষ্ঠীদের হারিবৈসুর (ফুল পূজা) মধ্য দিয়ে তিন দিনের বৈসু উৎসব শুরু করেছে। অন্যদিকে সাংগ্রাই উৎসবে মাতবে মারমারা।

খাগড়াছড়ি সদরের খবংপুড়িয়া এলাকা দিয়ে চেঙ্গী নদীতে ফুল ভাসাতে ভিড় জমায় শত শত চাকমা শিশু-কিশোর, তরুণ-তরুণীসহ বিভিন্ন বয়সী নারী-পুরুষ। সূর্যোদয়ের আগেই চাকমারা দলে দলে ছুটে যায় নদীর ধারে। কেউবা একাকী আবার অনেকে সারিবদ্ধ হয়ে নদীতে নানা রঙের ফুল ভাসায়। ফুলের রঙে রঙিন হয়ে ওঠে চেঙ্গী নদী। সর্বজনীন বৈসাবি উদ্যাপন কমিটির ব্যানারেও পৃথকভাবে নদীতে ফুল ভাসানো হয়। এ ছাড়া শহর ও শহরতলির বিভিন্ন খাল এবং প্রাকৃতিক ছড়াও ফুলে ফুলে ভরে যায়। ছোট্ট শিশুরা নদীর পানিতে ভিজে আনন্দ উল্লাস করে নতুন বছরকে আহ্বান জানায়।

প্রতিবছরের মতো এবারও পানখাইয়াপাড়ায় শুরু হয়েছে মারমাদের ঐতিহ্যবাহী খেলাধুলা। এর আগে মধুপুর এলাকা থেকে সর্বজনীন বৈসাবি উদ্যাপন কমিটির উদ্যোগে বের হয় বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা।

এ ছাড়া দুপুরে ‘য়ামুক’ সাংস্কৃতিক সংগঠনের উদ্যোগে অনুষ্ঠিত হয় ত্রিপুরা জনগোষ্ঠীর সবচেয়ে ঐতিহ্যবাহী গরয়া নৃত্য উৎসব।

সাংগ্রেং পোয়ের : নববর্ষে কক্সবাজারে বাঙালি সংস্কৃতির নানা অনুষ্ঠানের পাশাপাশি রাখাইনদের ঐতিহ্যবাহী ‘সাংগ্রেং পোয়ে’ বা জলকেলি হচ্ছে সবচেয়ে আকর্ষণীয় উৎসব। তবে বাংলা নববর্ষের তিন দিন পর শুরু হয় রাখাইন অব্দ (মঘি সন)। রাখাইনদের তিন দিনব্যাপী জলকেলি উৎসবও শুরু হবে ওই দিনে। নতুন বছরের সূচনালগ্নে ‘সাংগ্রেং পোয়ে’র তিন দিনের উৎসব শুরু হবে। অবশ্য পূজা-পার্বণের মাধ্যমে এর আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয় আরো চার দিন আগে। নতুন বছরের আগমনীতে কক্সবাজারের রাখাইন পল্লীগুলোয় ইতিমধ্যে বিরাজ করছে উৎসবের আমেজ।

ইতিহাসবিদদের মতে, রাখাইনদের নিজস্ব ক্যালেন্ডার প্রচলন হয় ১৫ ধন্যাবতি যুগ (৩৩২৫ খ্রিস্ট-পূর্ব) থেকে। হাজার বছর ধরে রাখাইন সভ্যতার ক্রমবিকাশে তাদের সংস্কৃতি প্রথায় ঘরে ঘরে নববর্ষ উৎসব উদ্যাপন করে আসছে।

রাখাইনদের এ উৎসবের মূল লক্ষ্য হচ্ছে অতীতের সব ব্যথা-বেদনা ও গ্লানি ভুলে ভ্রাতৃত্ববোধের মাধ্যমে ভবিষ্যতের দিকে এগিয়ে যাওয়া। সপ্তাহব্যাপী বর্ষবরণ উৎসবের সবচেয়ে আকর্ষণীয় পর্ব পানিখেলা বা জলকেলি। ঐতিহ্যবাহী এ উৎসবকে কেন্দ্র করে কক্সবাজারের রাখাইন পল্লী সাজানো হয় নবসাজে। পুরনো বছরের জীর্ণতা আর পাপ ধুয়ে-মুছে নতুন বছরকে স্বাগত জানানোর আনন্দের বহিঃপ্রকাশই মূলত সাংগ্রেং উৎসব।

এ উৎসবকে সামনে নিয়ে নতুন প্রজন্মের সদস্যরাই বেশি মাতোয়ারা হয়ে ওঠে। প্রেমিক-প্রেমিকাদের জন্য তো বলতে গেলে ‘মহা আনন্দের সময়’। কেননা এ উৎসবেই তারা তাদের লালিত স্বপ্ন বা অব্যক্ত কথা বলার স্বাধীনতা পেয়ে থাকে। পানি ছোড়ার অনুষ্ঠানে তারা সঙ্গী বেছে নেওয়ার স্বাধীনতাও পেয়ে থাকে।

কক্সবাজার দেশের প্রধান পর্যটন শহর হওয়ার সুবাদে রাখাইনদের ঐতিহ্যবাহী পানিখেলা দেখার জন্য দেশের বিভিন্ন স্থানের ভ্রমণপিপাসু লোকজন এ সময়টাকে আলাদাভাবে বেছে নেয়। রাখাইনদের অনুষ্ঠান দেখার জন্যও অনেক ভ্রমণপিপাসু এসে ভিড় করে। সে সঙ্গে জমে ওঠে কক্সবাজারে পর্যটকদের অন্যতম আকর্ষণ বার্মিজ ফ্যাশন মার্কেটগুলোও।

সর্বশেষ

ফটিকছড়িতে বজ্রপাতে দগ্ধ যুবকের মৃত্যু

বজ্রপাতে দগ্ধ হয়ে ১২ দিন মৃত্যুর সাথে যুদ্ধ করে...

বান্দরবানে কেএনএফের আস্তানায় যৌথ বাহিনীর অভিযান, নিহত ৩

বান্দরবানের রুমা উপজেলার রনিন পাড়ার কাছে ডেবাছড়া এলাকায় কেএনএফের...

বাজারে থাকা এসএমসি প্লাসের সব ইলেক্ট্রোলাইট ড্রিংকস প্রত্যাহারের নির্দেশ 

মানবদেহের জন্য ক্ষতিকর  এসএমসি প্লাসের বাজারে থাকা সব ইলেক্ট্রোলাইট...

তরুণদের চাকরির পেছনে না ছুটে উদ্যোক্তা হওয়ার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

দেশের তরুণদের চাকরির পেছনে না ছুটে উদ্যোক্তা হওয়ারও আহ্বান...

শেষ মুহূর্তে প্রচারনায় মুখরিত কাপ্তাইয়ের বিভিন্ন জনপদ 

আগামী ২১ মে কাপ্তাই উপজেলা পরিষদ নির্বাচনকে সামনে রেখে...

এভারেস্ট জয় করলেন চট্টগ্রামের বাবর আলী

পঞ্চম বাংলাদেশি হিসেবে বিশ্বের সর্বোচ্চ শৃঙ্গ মাউন্ট এভারেস্ট জয়...

আরও পড়ুন

শেষ মুহূর্তে প্রচারনায় মুখরিত কাপ্তাইয়ের বিভিন্ন জনপদ 

আগামী ২১ মে কাপ্তাই উপজেলা পরিষদ নির্বাচনকে সামনে রেখে শেষ মুহূর্তে  প্রচার প্রচারনায় জমে উঠেছে কাপ্তাইয়ের বিভিন্ন জনপদ। জয়ের জন্য মরিয়া হয়ে ছুটছেন তিন...

রাঙামাটিতে প্রতিপক্ষের গুলিতে ২ ইউপিডিএফ সদস্য নিহত

রাঙামাটির লংগদুতে প্রতিপক্ষের গুলিতে দুই ইউপিডিএফ সদস্য নিহত হয়েছে।শনিবার (১৮ মে) সকাল সাড়ে ৮টার দিকে উপজেলার বড় হাড়িকাবার ভালেদি ঘাট এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।নিহতরা...

তাপদাহ উপেক্ষা করে প্রার্থীরা ছুটছেন ভোটারের ধারে ধারে

ভোটের বাকি আর মাত্র ৪ দিন বাকি। আগামী ২১ মে অনুষ্ঠিত হবে কাপ্তাই উপজেলা পরিষদ এর নির্বাচন। এতে চেয়ারম্যান পদে ৩ জন, ভাইস চেয়ারম্যান...

অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ  নির্বাচন উপহার দিতে প্রশাসন  বদ্ধ পরিকর : রাঙামাটি  জেলা প্রশাসক

রাঙামাটি জেলা প্রশাসক মো: মোশারফ হোসেন খান বলেন, রাজস্থলী  উপজেলায়  প্রতিদ্বন্ধিতা প্রার্থীগণের মধ্যে যেই সৌহার্দপূর্ণ পরিবেশ আছে, সেটা দেখে আমার খুব ভালো লেগেছে। ভোট...