আজ সোমবার, ৬ এপ্রিল ২০২০ ইং

সবকিছু বিবেচনায় মেয়র পদে আ.জ.ম. নাছিরই পেতে পারেন চূড়ান্ত মনোনয়ন

খোকন মজুমদার রাজীব, সিনিয়র রিপোর্টার।    |    ০৪:২২ এএম, ২০২০-০২-১৪



সবকিছু বিবেচনায় মেয়র পদে আ.জ.ম. নাছিরই পেতে পারেন চূড়ান্ত মনোনয়ন

চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্বাচনের সময় যতই ঘনিয়ে আসছে আওয়ামী লীগের দলীয় মেয়র প্রার্থী নিয়ে আলাপ-আলোচনা ততই বাড়ছে। বর্তমান মেয়র ও নগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আ জ ম নাছির উদ্দিন আবারো মনোনয়ন পাচ্ছেন নাকি অন্য কেউ এই পদে আসীন হচ্ছে তা নিয়ে গত তিনদিন ধরে নগরজুড়ে সর্বত্র আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত হয়েছে।

গত ৪ দিনে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয় থেকে বর্তমান মেয়র আজম নাছির উদ্দিনসহ ১৫ জন প্রার্থী মেয়র পদে মনোনয়ন পত্র সংগ্রহ করার পর এই আলোচনার ডালপালা  আরো বিস্তৃত হতে থাকে।
ইতোমধ্যে চট্টগ্রামের রাজনীতিতে বইতে শুরু করেছে নির্বাচনী আবহ। ভোটের লড়াইয়ের আগে মনোনয়ন নিয়ে উত্তাপ ছড়াচ্ছে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগে। চট্টগ্রামের রাজনৈতিক অঙ্গনে সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের বিষয়টি এখন সবচেয়ে বেশি আলোচনায় প্রাধান্য পাচ্ছে। সঙ্গে প্রার্থী নিয়েও।

মেয়র পদে আওয়ামী লীগের প্রার্থী আ জ ম নাছির উদ্দিন থাকছেন নাকি নতুন কাউকে আনা হচ্ছেন তা জানা যাবে ১৬ ফেব্রুয়ারি রোববার।

তবে এর মধ্যে যে ১৫ জন প্রার্থী মনোনয়ন নিয়েছেন তাদের মধ্যে বর্তমান মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিনের ইমেজ এবং গ্রহণযোগ্যতায় অন্য কেউ তার ধারে কাছেও নাই।  তাই আগামী সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে আবারও যে মেয়র পদে আ.জ. ম. নাছির উদ্দিন দলীয় মনোনয়ন পাচ্ছেন তা অনেকটা নিশ্চিত বলে কেন্দ্রীয় নানান সূত্রে জানা গেছে।

আগামী ১৬ ফেব্রুয়ারি আওয়ামী লীগের মনোনয়ন বোর্ড এ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবেন। তার আগেই প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবনে দলের মনোনয়ন বোর্ডের সভা অনুষ্ঠিত হবে। সেখানেই দলীয় প্রার্থী চূড়ান্ত করা হবে।

এদিকে ১৩ ফেব্রুয়ারি বৃহস্পতিবার দুপুরে সাবেক বিএনপি নেতা  ও মেয়র মনজুর আলম আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয় থেকে মেয়র পদে মনোনয়ন নেয়ার পর থেকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যাপক সমালোচনার ঝড় উঠেছে। বারে বারে দলছুট এই নেতার ক্ষমতার পেছনে থাকার বিষয়টি নেতাকর্মীরা নানানভাবে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রচারণা শুরু করেছেন। যখনই  যে দল ক্ষমতায় থাকে ক্ষমতার লোভে তার সাথে থাকতেই মনজুর আলম ভালবাসেন বলে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে লেখালেখি শুরু করেছেন আওয়ামী লীগ যুবলীগ ও ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা।

চট্টগ্রামের ছাত্রলীগ যুবলীগ নেতাদের মতে, নিজ দলের নেতাদের বিরুদ্ধে যত অভিযোগই থাকুক না কেন তা মার্জনা করে শেষ পর্যন্ত দলীয় প্রার্থীকে মেয়র পদে আসন্ন সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে মনোনয়ন দেয়া হোক। 

তবে বৃহস্পতিবার থেকে গুঞ্জন শোনা যাচ্ছে যে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্বাচনে মেয়র পদে সবকিছু বিবেচনা করে আবারো আ জ ম নাছির উদ্দিনকে  দলীয় মনোনয়ন দেয়া হতে পারে। 

ইতোমধ্যে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেতে মেয়র পদে এখন পর্যন্ত ১৫ জন মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করে জমা দিয়েছেন। মনোনয়ন প্রত্যাশীরা বিশাল বিশাল শোডাউন নিয়ে আনন্দ-উৎসবে মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করে। কিন্তু শিক্ষা উপমন্ত্রী নওফেল মনোনয়ন নেন নি। যারা ইতিমধ্যে দলীয় মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন তাদের মধ্যে- বর্তমান মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম চৌধুরী, চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (সিডিএ) সাবেক চেয়ারম্যান ও মহানগর আওয়ামীলীগের কোষাধ্যক্ষ আবদুচ ছালাম, চট্রগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি খোরশেদ আলম সুজন, চট্রগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও সাবেক প্রবাসী কল্যান মন্ত্রী নুরুল ইসলাম বিএসসি ও তার ছেলে মুজিবুর রহমান, মুক্তিযুদ্ধের বিজয় মেলা পরিষদের আহ্বায়ক মো. ইউনুস, সাবেক প্যানেল মেয়র রেখা আলম, অবসরপ্রাপ্ত সামরিক কর্মকর্তা ও রাজনৈতিক সামরিক বিশ্লেষক মেজর (অব.) এমদাদুল ইসলাম, সদ্যপ্রয়াত চট্টগ্রাম-৮ আসনের সাংসদ মাইনুদ্দিন খান বাদলের স্ত্রী সেলিনা খান, আওয়ামী লীগ নেতা হেলাল উদ্দিন চৌধুরী,  মো. ইনসান আলী।

এদের মধ্যে কেউ কেউ কেন্দ্রীয় হাইকমান্ডের নজরে আসতে বিভিন্ন তদবির করছেন। দলীয় মনোনয়নপত্র কেনার সময় রয়েছে আর মাত্র একদিন।  শুক্রবার মনোনয়ন সংগ্রহ ও জমাদানের শেষ দিন। আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, আসন্ন সিটি করপোরেশন নির্বাচনে যারা মনোনয়ন পাবেন তাদের সম্পর্কে গোয়েন্দা রিপোর্ট, দলীয় রিপোর্টসহ বিভিন্ন রিপোর্ট পর্যালোচনা করা হবে। স্থানীয় সরকার মনোনয়ন বোর্ডের সভায় প্রার্থী সম্পর্কে আলাপ-আলোচনার পর মনোনয়ন দেওয়া হবে।

তিনি আরো বলেছেন, রাজনীতিতে যারা বিতর্কিত তাদের সিটি নির্বাচনে মনোনয়ন দেওয়া হবে না। যাদের অপকর্মের কোনো রেকর্ড নেই তারা মনোনয়ন পাবেন। মনোনয়ন দেওয়া হবে ক্লিন ইমেজের প্রার্থীকে।

গতকাল নগরজুড়ে সবচেয়ে আলোচনার বিষয়টি হয়ে উঠেছিল আসন্ন চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে কে হচ্ছেন নৌকার মাঝি। কেউ বলছেন বর্তমান মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিনই হচ্ছেন আওয়ামী লীগের প্রার্থী। আবার কেউ বলছে নগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি খোরশেদ আলম সুজনের নাম। আবার কারো কারো মুখে বঙ্গবন্ধুর অত্যন্ত ঘনিষ্ঠ সহচর জহুর আহমদ চৌধুরী  ছেলে হেলাল উদ্দিন চৌধুরী তুফানের নামও শোনা যাচ্ছে। এই তালিকায় আছেন নগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম চৌধুরীও। তবে দলীয় হাইকমান্ডের মতে, গত নির্বাচনে ইশতেহার অনুযায়ী মেয়র আ জ ম নাছির তার দেয়া অধিকাংশ প্রতিশ্রুতিই রক্ষা করেছেন।

বর্তমান মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিনের সবচেয়ে বড় সফলতার মধ্যে  একসময়ে বিলবোর্ডে ঢেকে যাওয়া চট্টগ্রাম নগরীকে বিলবোর্ড মুক্ত করে চট্টগ্রামের সৌন্দর্য তিনি ফিরিয়ে দিয়েছেন। তার আগের সময়ের মেয়র মনজুর আলমের পাঁচ বছরে চট্টগ্রাম মহানগরী ছিল ময়লার ভাগাড়। পথে-পথে ছিল ডাস্টবিন। রাস্তাঘাট ছিল  দুর্গন্ধময়।  মেয়রের আদেশ-নির্দেশ কেউ মান্য করত না। সিটি কর্পোরেশনের সামান্য একজন কর্মচারী মেয়রের  অনুমতি ছাড়া পুরো নগরীতে বিলবোর্ডের অনুমোদন দিয়ে শত শত কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন। সিটি কর্পোরেশনের কয়েকজন কর্মকর্তা-কর্মচারী এবং বিএনপি যুবদল ছাত্রদলের নেতারা শত শত কোটি টাকার বিলবোর্ডের ব্যবসা করেছেন। পুরো নগরী ময়লা আবর্জনা দুর্গন্ধে জঞ্জালে পরিণত হয়েছিল।

পরবর্তীতে ২০১৫ সালের নির্বাচনে আ জ ম নাছির উদ্দিন মেয়র নির্বাচিত হলে তিনি প্রথমে নগরীকে বিলবোর্ড মুক্ত করে প্রাকৃতিক সৌন্দর্যমন্ডিত চট্টগ্রামের রূপ ফিরিয়ে দেন।  তারপর তিনি হাত দেন  নগরীর রাস্তার মোড় থেকে ডাস্টবিন অপসারণের।  এতে তিনি সফল হয়েছেন। ডাস্টবিন অপসারণ করে তিনি ডোর টু ডোর বর্জ্য অপসারণের উদ্যোগ নেন।  গত পাঁচ বছরে নগরীর প্রতিটি ওয়ার্ডের সড়ক অবকাঠামো নালা- ফুটপাত সংস্কারে ৩০ কোটি থেকে ১০০ কোটি টাকার পর্যন্ত কাজ হয়েছে বলে চট্টগ্রাম নিউজকে জানান বিভিন্ন ওয়ার্ড কাউন্সিলররা জানিয়েছেন।
তবে আজম নাছিরের রাজনৈতিক সাংগঠনিক দক্ষতা অতীতের যেকোনো কারো চেয়ে কম নয়-সেটাও তিনি প্রমাণ করেছেন। মহানগর আওয়ামী লীগের সবাইকে ঐক্যবদ্ধ করপ অনেক বেশি শক্তিশালী করেছেন। বর্তমানে মহানগর আওয়ামী লীগে কোনো ধরনের গ্রুপে নেই।

এজন্যই ক্লিন ইমেজের আ.জ.ম. নাছির উদ্দিনের নাম উঠে আসছে বার বার।

চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আ জ ম নাছির উদ্দীন গণমাধ্যমকে বলেন, আমি মেয়র হিসেবে দায়িত্ব নেওয়ার আগের ২৫ বছরে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনে উন্নয়ন কাজ হয়েছে দুই হাজার ৫৫০ কোটি টাকার। আমি মেয়র হওয়ার পর গত সাড়ে চার বছরে হয়েছে তিন হাজার কোটি টাকার কাজ। অনুমোদন হয়েছে আরও আড়াই হাজার কোটি টাকার প্রকল্প। এছাড়া ছয় হাজার কোটি টাকার উন্নয়ন প্রকল্প জমা আছে। মোট কথা, আমি চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনকে একটি টেকসই ভিত্তির ওপর দাঁড় করিয়েছি। সে ভিত্তিতে উন্নয়নের ধারাবাহিকতা বজায় রাখতে এবারও দলীয় মনোনয়নের পাওয়ার ব্যাপারে আমি আশাবাদী।

মনোনয়ন প্রত্যাশী রেজাউল করিম চৌধুরী বলেন, মেয়র নির্বাচন করাটা এক রকমের চ্যালেঞ্জ। আমি চ্যালেঞ্জ নিতে রাজি কিন্তু তা নির্ভর করবে প্রধানমন্ত্রী চান কি না। সব কিছু দলীয় সিদ্ধান্তের ওপর নির্ভর করছে। আশা করছি নেত্রী আমার প্রতি আস্থা রাখবেন।

সাবেক সিটি মেয়র ও বিএনপির চেয়ারপার্সনের সাবেক উপদেষ্টা মনজুর আলম এবার আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন সংগ্রহ করেছেন। এ বিষয়ে মেয়র মনজুর আলমের পুত্র সরওয়ার আলম বলেন, নির্বাচন করার জন্য আমরা পারিবারিকভাবে প্রস্তুত আওয়ামী লীগের কার্যালয় থেকে দলীয় ফরম সংগ্রহ করা হয়েছে।

প্রসঙ্গত, মনজুর আলম তিন দফায় আওয়ামী লীগ সমর্থিত ওয়ার্ড কাউন্সিলর (কমিশনার) ছিলেন। মহিউদ্দিন চৌধুরী মেয়র থাকাকালে বিভিন্ন সময় ভারপ্রাপ্ত মেয়রেরও দায়িত্ব পালন করেন। এরপর ২০১০ সালের নির্বাচনে ৪ লাখ ৭৯ হাজার ১৪৫ ভোট পেয়ে নিজের রাজনৈতিক গুরু এ বি এম মহিউদ্দিন চৌধুরীকে প্রায় ৯৫ হাজার ভোটের ব্যবধানে হারিয়ে মেয়র হয়েছিলেন বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী মনজুর।

২০১৫ সালে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্বাচনে ভোটার সংখ্যা ছিল ১৮ লাখ ১৩ হাজার ৪৪৯ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ৯ লাখ ৩৭ হাজার ৫৩ জন এবং নারী ভোটার ৮ লাখ ৭৬ হাজার ৩৯৬ জন। এবার প্রায় দেড় লাখ ভোটার বাড়তে পারে। এর মধ্যে ভোটাধিকার প্রয়োগ করেছেন ৮ লাখ ৬৮ হাজার ৬৬৩ ভোট। ভোটের হার ৪৭ দশমিক ৯ শতাংশ। নির্বাচনে বিজয়ী প্রার্থী হাতি প্রতীকের আ জ ম নাছির ৪ লাখ ৭৫ হাজার ৩৬১ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হন। প্রতিদ্বন্দ্বী মোহাম্মদ মনজুর আলম কমলা প্রতীক নিয়ে পেয়েছিলেন ৩ লাখ ৪ হাজার ৮৩৭ ভোট। ২০১৫ সালের ২৮ এপ্রিল চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্বাচনে মেয়র পদে জয়ী হন নগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আ জ ম নাছির উদ্দীন। তিনি শপথ নেন ৬ মে। কিন্তু আইনি বাধ্যবাধকতায় মেয়র দায়িত্ব নেন ওই বছরের ২৬ জুলাই। স্থানীয় সরকার নির্বাচন আইনে ২০২০ সালের ৫ আগস্টের মধ্যে নির্বাচন করার বাধ্যবাধকতা রয়েছে।

রিলেটেড নিউজ

নতুন করে ৩৫ জন আক্রান্ত, ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু ৩: আইইডিসিআর

নতুন করে ৩৫ জন আক্রান্ত, ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু ৩: আইইডিসিআর

অনলাইন ডেস্ক, চট্টগ্রাম নিউজ। : গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে ৩৫ জন নতুন করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছেন। তাদের মধ্যে পুরুষ ৩০ জন ও নারী ৫ জন। ২৪...বিস্তারিত


কক্সবাজারে আত্মসমর্পনকারী ১৪ জলদস্যু পরিবারে পুলিশের খাদ্য সামগ্রী বিতরণ

কক্সবাজারে আত্মসমর্পনকারী ১৪ জলদস্যু পরিবারে পুলিশের খাদ্য সামগ্রী বিতরণ

কক্সবাজার প্রতিনিধি। : করোনা প্রতিরোধে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সেবাযুদ্ধে কক্সবাজার পুলিশ সুপার এ বি এম মাসুদ হোসেন...বিস্তারিত


তাবলিগের সব কার্যক্রম স্থগিত

তাবলিগের সব কার্যক্রম স্থগিত

বিশেষ প্রতিনিধি। : মানিকগঞ্জের সিঙ্গাইরে তাবলিগ জামাতে গিয়ে এক মুসল্লি করোনাভাইরাসে (কোভিড-১৯) আক্রান্ত হওয়ার পর...বিস্তারিত


আক্রান্ত আরও ১৮, করোনায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৯

আক্রান্ত আরও ১৮, করোনায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৯

বিশেষ প্রতিনিধি। : বৈশ্বিক মহামারি করোনাভাইরাসে দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ১৮ জন আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত হয়েছেন। এ...বিস্তারিত


 গণপরিবহন ১১ এপ্রিল পর্যন্ত বন্ধ থাকবে

গণপরিবহন ১১ এপ্রিল পর্যন্ত বন্ধ থাকবে

ঢাকা প্রতিনিধি। : করোনাভাইরাসের কারণে উদ্ভূত পরিস্থিতি মোকাবিলায় দেশব্যাপী চলমান গণপরিবহন বন্ধের সিদ্ধান্ত...বিস্তারিত


করোনায় আরও দুজনের মৃত্যু, আক্রান্ত ৭০

করোনায় আরও দুজনের মৃত্যু, আক্রান্ত ৭০

বিশেষ প্রতিনিধি। : দেশে করোনাভাইরাসে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও নয়জন আক্রান্ত হয়েছেন। এ নিয়ে ভাইরাসটিতে মোট আক্রান্তের...বিস্তারিত


সর্বপঠিত খবর

কাউন্সিলর জসিমের বাসায় এমপি দিদার অবরুদ্ধ

কাউন্সিলর জসিমের বাসায় এমপি দিদার অবরুদ্ধ

স্টাফ রিপোর্টার । : চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন (চসিক) নির্বাচনে বিদ্রোহী কাউন্সিলর প্রার্থী জহুরুল আলম জসিমের বাসায়...বিস্তারিত


চসিকে তিন মেয়র প্রার্থীর হলফনামায় যার যত সম্পদ!

চসিকে তিন মেয়র প্রার্থীর হলফনামায় যার যত সম্পদ!

জে.জাহেদ, সিনিয়র রিপোর্টার। : চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন (চসিক) নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনীত মেয়র প্রার্থী রেজাউল করিম...বিস্তারিত